পর্দায় আসছে সঙ্গী বদলের গল্প

সময়ের অভাবে সঠিক সঙ্গী পাওয়া খুব দুরুহ ব্যাপার। প্রেম হয়, বিয়ে হয়। তারপর দেখা যায় সঙ্গী একেবারে উল্টো। একজন উত্তর মেরু তো অন্যজন দক্ষিণ। কিচ্ছুটি ম্যাচ করে না। তাও না হয় সইয়ে নেওয়া গেল। কিন্তু বিছানাতেও যদি মত না মেলে?

ধরা যাক, একজনের যৌন খিদে মারাত্মক। অন্যজন যৌনতাই সেভাবে পছন্দ করে না। আর করলেও অত্যধিক যৌনতা একেবারেই সে পছন্দ করে না। ওপর ওপর ঠিক আছে। কিন্তু সঙ্গীর যে প্যাশন আছে, তা নেই। অন্যজনের আবার বিছানায় ‘জংলি বিল্লি’ চাই। বিডিএসএম হলে তো কথাই নেই। এমনই এক দম্পতি রয়েছে ‘মিসম্যাচ’-এ। আবার এর উল্টোটাও রয়েছে। স্বামীর সেখানে যৌনতা মারাত্মক। স্ত্রী লজ্জাবতী লতা। স্বামীর সামনে পোশাক পালটাতেও তার লজ্জা। স্ত্রীর এমন কাজকর্মে পতিদেবতার প্রাণ ওষ্ঠাগত।

এই চারজনের জীবন এভাবেই আবর্তিত হয়। কিন্তু চিরকাল তো আর একইরকম চলতে পারে না। এর বদল দরকার। আবার মানুষ বদলানোও চাট্টিখানি কথা না। কিন্তু এই একবিংশ শতকে উপায় কি আর নেই? অবশ্যই আছে। পার্টনার বদলে নাও। তাহলেই সমস্যার সমাধান।

এই গল্পই দেখানো হয়েছে ‘মিসম্যাচ’-এ। কিন্তু সাদামাটা গল্প বললে তো আর হবে না। এমন একটা জম্পেশ কাহিনি। এর মধ্যে টুইস্ট না থাকলে চলে? নির্মাতারও জানেন সে কথা। তাই তো সিরিজে রয়েছে আরও এক দম্পতি। তারা নিজের মেয়েকে অন্য পুরুষের সঙ্গে দেখে হতবাক। তেমনই বাক্যহারা জামাইয়ের কাণ্ডকারখানা দেখে। তারা শুরু করে তাদের গোয়েন্দাগিরি।

এইসব নিয়েই জমজমাট ওয়েব সিরিজ ‘মিসম্যাচ’। অভিনয় করেছেন, রাজদীপ গুপ্ত, ব়্যাচেল হোয়াইট, মৈনাক বন্দ্যোপাধ্যায়, সুপর্ণা মালাকার প্রমুখ। পরিচালনা করেছেন সৌমিক চট্টোপাধ্যায়।