ডেনমার্ক ফুটবল দলে ছাত্র, সেলসম্যান, ইউটিউবার!

ছেলে ক্যাসপার স্মাইকেল যতবার পেনাল্টি ঠেকাচ্ছেন, ততবার গ্যালারিতে থাকা বাবা পিটার স্মাইকেল দুই হাত ছুড়ে উল্লাস করছেন। গত বিশ্বকাপের শেষ ষোলোয় ডেনমার্ক ও ক্রোয়েশিয়া ম্যাচের এ দৃশ্যটা সবার মনেই দাগ কেটেছিল। টাইব্রেকারে ক্রোয়েশিয়ার কাছে হেরে বিশ্বকাপের শেষ ষোলো থেকে বিদায় নিয়েছিল ডেনমার্ক।

বিশ্বকাপের পর গতকাল প্রথমবার ম্যাচ খেলতে নেমেছিল ডেনমার্ক। কিন্তু বিশ্বকাপের নকআউটপর্বে ওঠে চমক দেখানো সেই ডেনমার্ক দলের কোনো খেলোয়াড়ই ছিলেন না স্লোভাকিয়ার বিপক্ষে এই আন্তর্জাতিক প্রীতি ম্যাচে! ডেনমার্কের হয়ে কারা খেলেছেন জানেন? ছাত্র, সেলসম্যান, ইউটিউবাররা!

আসলে বেতন-ভাতা নিয়ে ডেনমার্ক ফুটবল ফেডারেশনের সঙ্গে দ্বন্দ্ব চলছে মূল একাদশের খেলোয়াড়দের। স্লোভাকিয়ার বিপক্ষে ম্যাচটি খেলতে অস্বীকৃতি জানান স্মাইকেল, ক্রিস্টিয়ান এরিকসেনরা। এমনকি ডেনমার্কের শীর্ষ দুই বিভাগের কোনো খেলোয়াড়ই খেলতে রাজি হননি। অনেকটা বাধ্য হয়েই তৃতীয়, পঞ্চম বিভাগের ফুটবলার নামিয়ে দিয়েছিল ডেনমার্ক।

ডেনমার্কের আক্রমণভাগের নেতৃত্ব দিয়েছেন ক্রিস্টিয়ান অফেনবার্গ। যিনি পার্ট-টাইম সেলসম্যান, খেলেন ডেনিশ তৃতীয় বিভাগের দল আলভারতার হয়ে। রাইট-ব্যাক সিমন ভলসেন খেলেন পঞ্চম বিভাগে।

মিডফিল্ডার রাসমুস জোহানসন আবার ছাত্র। যিনি ইন্টারনেট ফ্রিস্টাইল ফুটবলার হিসেবেই বেশি পরিচিত। ফুটবল নিয়ে ইন্টারনেটে নানা কসরত দেখিয়ে থাকেন জোহানসন। ইনস্টাগ্রাম ও ইউটিউবে তার হাজার হাজার অনুসারী।

অন্যদিকে স্লোভাকিয়ার হয়ে খেলেছেন প্রাক্তন লিভারপুল ডিফেন্ডার মার্টিন স্কর্টেল, নাপোলির প্লে-মেকার মারেক হামসিকের (যিনি নাপোলির হয়ে দিয়েগো ম্যারাডোনার সবচেয়ে বেশি গোলের রেকর্ড ভেঙে দিয়েছেন) মতো খেলোয়াড়রা।

স্বাভাবিকভাবেই স্লোভাকিয়ার সঙ্গে পেরে ওঠেনি ডেনমার্ক। ডেনিশরা হেরেছে ৩-০ গোলে। প্রথমার্ধে স্লোভাকিয়াকে এগিয়ে দিয়েছিলেন অ্যাডাম নেমেক ও আলবার্ট রুসনাক। দ্বিতীয়ার্ধে আত্মঘাতী গোল করে বসেন ডেনিশ ফুটসল খেলোয়াড় অ্যাডাম ফগট।

ডেনমার্ক পুরো ৯০ মিনিটে অন টার্গেটে শট নিতে পেরেছে মাত্র একটি। বল দখলে রাখতে পেরেছে ২৭ ভাগ। পেশাদার ফুটসল গোলরক্ষক ক্রিস্টোফার হাগ অবশ্য স্লোভাকিয়ার ১০ শটের সাতটি সেভ করেন। তা না হলে আরো বড় পরাজয়ের লজ্জাতেই ডুবতে হতো ডেনমার্ককে।

ডেনমার্কের পরের ম্যাচ রোববার উয়েফা নেশনস লিগে ওয়েলসের বিপক্ষে। মূল একাদশের খেলোয়াড়রা এই ম্যাচেও খেলতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন। সমস্যার সমাধান না হলে গ্যারেথ বেল, অ্যারন রামসেদের ওয়েলসের সামনেও লজ্জায় পড়তে হবে ডেনিশদের।

তথ্যসূত্র : বিবিসি।