সাভার থানা যুবলীগের সাবেক সভাপতি সেলিম মন্ডল গ্রেফতার

স্টাফ রিপোর্টার: সাভার থানা যুবলীগের সাবেক সভাপতি সেলিম মন্ডল গ্রেফতার হয়েছে। দ্বিতীয় স্ত্রীকে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগে ইতালীতে পালিয়ে যাওয়ার সময় হযরত শাহজালাল আন্তজার্তিক বিমানবন্দর থেকে সাভার থানা যুবলীগের সাবেক সভাপতি ও ঢাকা জেলা পরিষদের সদস্য সেলিম মন্ডলকে গত মঙ্গলবার গভীর রাতে আটক করেছে পুলিশ।

জানা যায়, গত ২৮ জুলাই সেলিম মন্ডল তার ২য় স্ত্রী আয়েশা আক্তার বকুল (২৫) কে নিয়ে এলাকার একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে যান তিনি। বিয়ের অনুষ্ঠানে স্ত্রী আয়েশা আক্তার বকুলের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয় সেলিমের। এ ঘটনার চারদিন পর গত ২ আগস্ট থেকে আয়েশা নিখোঁজ হয়। গত ৩ আগস্ট সাভার উপজেলার পার্শ্ববর্তী সিঙ্গাইরের বায়রা ইউনিয়নের স্বরুপপুর গ্রামের কলাবাগান থেকে সারা শরীর ঝলছে অবস্থায় অজ্ঞাত পরিচয় এক নারীর লাশ উদ্ধার করে সিঙ্গাইর থানা পুলিশ।

এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে সিঙ্গাইর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। পরে আত্মীয়-স্বজনরা এলাকাসহ বিভিন্ন স্থানে খোঁজাখুঁজি করে আয়েশাকে না পেয়ে সিঙ্গাইর থানায় গিয়ে পরদিন উদ্ধার হওয়া ঝলছে নারীর লাশের ছবি দেখে নিখোঁজ আয়শা আক্তার বকুল কে সনাক্ত করে। পরে ওই গৃহবধূর পরিবারের পক্ষ থেকে সেলিম মন্ডলকে প্রধান আসামী করে মানিকগঞ্জের সিংগাইর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

এ মামলায় সেলিম মন্ডল বেশ কয়েকদিন পালিয়ে থেকে সম্প্রতি আদালতে উপস্থিত হয়ে তার আইনজীবী জামিনের আবেদন করলে আদালত তাকে জামিন দেন। পরে গত মঙ্গলবার রাতে তিনি ইতালীতে পালিয়ে যাওয়ার সময় বিমানবন্দরে তাকে আটক করে ইমিগ্রেশন পুলিশ। পরে তাকে মানিকগঞ্জের সিংগাইর থানা পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

এদিকে নিজের স্ত্রীকে পুড়িয়ে হত্যার অভিযোগে সেলিম মন্ডলকে এ ঘটনার পর যুবলীগ থেকে বহিস্কার করে কেন্দ্রীয় যুবলীগ। এ ঘটনায় সেলিম মন্ডলের ছোট ভাই জুয়েল মন্ডল এখনো জেল হাজতে রয়েছেন। নিহত আয়শা আক্তার বকুল সেলিম মন্ডলের ২য় স্ত্রী ও বিরুলিয়া ইউনিয়নের সামাইর গ্রামের সোরহাব হোসেনের মেয়ে ছিল।

সিগাংইর থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) আনোয়ার হোসেন ইমিগ্রেশন পুলিশ সেলিম সেলিম মন্ডলকে সিগাংইর থানা থানা পুলিশের নিকট হস্তান্তরের কথা নিশ্চিত করেছেন।