আইন না মানলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে: ডিএমপি কমিশনার

 ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার মো. আছাদুজ্জামান মিয়া বলেছেন, অধিকাংশ মানুষের আইন না মানার প্রবণতার কারণে সড়কে বিশৃঙ্খলা হচ্ছে। ফলে এখন থেকে ট্রাফিক আইন না মানলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

মঙ্গলবার সকালে রাজধানীতে মাসব্যাপী ট্রাফিক সচেতনতামূলক কার্যক্রম উদ্বোধনকালে তিনি এসব কথা বলেন।

এর আগে সোমবার ফুটওভার ব্রিজ ব্যবহার না করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলন্ত গাড়ির ফাঁক দিয়ে রাস্তা পারাপার ও মোটরসাইকেল আরোহী হেলমেট ব্যবহার না করাসহ ট্রাফিক আইন ভঙ্গের দায়ে সোমবার ফার্মগেটে ভ্রাম্যমাণ আদালতে ২৬জনকে জরিমানা করা হয়েছে।

বিআরটিএ পরিচালিত ভ্রাম্যমাণ আদালতে বেপরোয়া পথচারীদের কাছ থেকে ৫০ থেকে ২০০ টাকা পর্যন্ত জরিমানা আদায় করেন বিআরটিএর ভ্রাম্যমাণ আদালতের ম্যাজিস্ট্রেট সারা সাদিয়া তাজনিন৷

ছাড় পাননি নারীরাও। বিআরটিএর ভ্রাম্যমাণ আদালত উপলক্ষে ফার্মগেট এলাকায় মোতায়েন করা হয় বাড়তি পুলিশ৷ বেপরোয়া নারী পথচারীদেরও পাকড়া করা হয়৷

ঝুঁকি না নিয়ে ফুটওভার ব্রিজ দিয়ে রাস্তা পার হওয়ার অনুরোধ জানিয়ে ট্রাফিক বিভিন্ন কর্মসূচি পালন করলেও পরিস্থিতির উন্নতি হয়নি৷

ফুটওভার ব্রিজ রেখে রাস্তার মাঝ দিয়ে পার হওয়াটা আইনের লংঘন, কিন্তু এ বিষয়ে অবগত নন অনেকে৷ তাই পুলিশ ধরলে বিস্ময় প্রকাশ করেন তারা৷ আগে ঘোষণা না দিয়ে এই অভিযান চালানো নিয়েও প্রশ্ন তোলেন কেউ কেউ৷

ফার্মগেটে সোমবার সকালে অভিযানে ২৬ ব্যক্তিকে জরিমানা করা হয়। বিআরটিএর আইনে এই অপরাধে জরিমানার বদলে জেল দেওয়ার বিধান রয়েছে বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন ম্যাজিস্ট্রেট৷

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বলেন, ট্র্যাফিকের নিয়ম ভঙ্গ এবং ওভার ব্রিজ ব্যবহার না করার জন্য প্রত্যেককে ৫০ টাকা করে জরিমানা করা হয়েছে। অন্যদিকে মোটরসাইকেল আরোহীকে হেলমেট ব্যবহার না করার কারণে ২০০ টাকা জরিমান করা হয়েছে।

প্রসঙ্গত, ফুটওভার ব্রিজ থাকলেও তা ব্যবহার না করে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলন্ত গাড়ির ফাঁক গলে রাস্তা পার হওয়া ঢাকার দীর্ঘদিনের সমস্যা৷ জনগণকে সচেতন করতে ট্রাফিক সপ্তাহ পালন ও ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনাসহ বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নিয়েছে মহানগর পুলিশ।