নামাজ কোথায় পড়লে কত সওয়াব?

: মসজিদে নামাজ পড়ার ফজিলত নিয়ে অনেক হাদিস রয়েছে। তবে প্রত্যেক মসজিদের সওয়াব একই রকম নয়। কারণ, মুসলিম সমাজে দুই ধরনের মসজিদ রয়েছে। জামে মসজিদ ও পাঁচ ওয়াক্ত নামাজের ইবাদতখানা। যাকে পাঞ্জেগানা মসজিদ বলা হয়।

এ ছাড়াও মসজিদে হারাম, মসজিদে নববি ও মসজিদে আকসার সওয়াবও পৃথক পৃথক দেওয়া হয়। আবার মসজিদের বাইরে কোথাও নামাজ আদায় করলে তার সওয়াবের পরিমাণও আলাদা। আসুন, বিভিন্ন জায়গায় নামাজের সওয়াব সম্পর্কে জেনে নিই-

মসজিদে হারাম
মসজিদে হারাম বলে কাবাগৃহসহ চারিদিক পরিবেষ্টিত মসজিদকে। এখানে ‘হারাম’ শব্দের অর্থ সম্মানিত। এ মসজিদের মধ্যখানে কাবাঘর অবস্থিত। মসজিদে হারামে এক নামাজ ১ লাখ নামাজের সমান।

মসজিদে আকসা
মসজিদে আকসার বিবরণ কোরআনে কারিমে একাধিকবার এসেছে। হজরত নবী করিম (সা.) মিরাজ রজনীতে সেখানে গমন করেন। রাসূল (সা.) বলেন, মসজিদে আকসার এক নামাজ ৫০ হাজার নামাজের সমান।

মসজিদে নববী
মসজিদে নববী হলো ইসলামের সোনালি যুগের সব কর্মকা-ের প্রথম কেন্দ্র। এ মসজিদের এক নামাজ ৫০ হাজার নামাজের সমান। তবে অন্য একটি হাদিসে আছে যে, মসজিদে নববির এক নামাজ ১ হাজার নামাজের সমান। এ হাদিসটি হজরত আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত। -মেশকাত: ৬৪০

জামে মসজিদ
মসজিদে হারাম, মসজিদে আকসা ও মসজিদে নববী ব্যতীত অন্যকোনো মসজিদে মুসলমানরা সমবেত হয়ে পাঁচ ওয়াক্ত নামাজসহ জুমার নামাজ জামাতে আদায় করা হলে তাকে জামে মসজিদ বলে। এ মসজিদের এক নামাজ ৫০০ নামাজের সমান।

পাঞ্জেগানা মসজিদ
যে মসজিদে জুমার নামাজ ব্যতীত শুধু পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ জামাতে পড়া হয়, তাকে পাঞ্জেগানা মসজিদ বলে। এ মসজিদের এক নামাজ ২৫ নামাজের সমান।

ঘর বা দোকানে নামাজ পড়া
মসজিদের বাইরে ঘরে বা দোকান ইত্যাদি জায়গায় নামাজ আদায় করলে এক নামাজের পরিবর্তে এক নামাজের সমান সওয়াব দেওয়া হবে। -মেশকাত: ৬৯৬