দর্শক খরায় ভুগলো রোনালদোহীন রিয়াল

মৌসুমটায় রোনালদোহীন রিয়াল মাদ্রিদ কেমন করবে তা আগাম জানা না গেলেও ভিন্ন কিছুর জানান দিলেন দর্শকরা। দশ বছরে এবারই প্রথম সান্তিয়াগো বার্নাব্যু ছিল প্রায় অর্ধেক খালি! এক সময়ে দর্শকে টইটুম্বুর থাকা ৮১ হাজারের বেশি আসনধারী বার্নাব্যুতে রবিবার উপস্থিত ছিলেন ৪৮ হাজার ৪৬৬ জন!

সবশেষ যখন এমনটি হয়েছিল যখন তখন রিয়ালে আসেননি রোনালদো। টানা হারের বৃত্তে থাকা রিয়াল মাদ্রিদ তখন ছিল দিশাহীন। এমনই দীনতা ছিল যে ক্লাসিকোতে পেপ গার্দিওলার বার্সেলোনার কাছে বিশাল ব্যবধানে হারের লজ্জা পায় মাদ্রিদ। ম্যাচটি রিয়াল হেরে গিয়েছিল ৬-২ গোলে। ঠিক এরপর থেকে রিয়াল মাদ্রিদের ম্যাচ থেকে মুখ ফিরিয়ে নেন দর্শকরা।

এমন দশার পর বিবর্ণ রিয়াল মাদ্রিদে রং ফেরে ক্রিস্তিয়ানো রোনালদো ঠিকানা বদল করলে। সেই হারের পর বিশ্ব রেকর্ড ফিতে চুক্তিবদ্ধ করানো হয় পর্তুগিজ তারকাকে। ২০০৯ সালের জুনে তার আগমনের পর সব দিক দিয়ে রমরমা ছিল লস ব্লাঙ্কোসরা। আর এখন জুভেন্টাসে রোনালদোর চলে যাওয়ার পর পরিস্থিতি কোন দিকে যাচ্ছে তার একটুখানি ঝলক দেখা গেলো রিয়ালের লা লিগার উদ্বোধনী ম্যাচে!

গ্যারেথ বেলের নৈপুণ্যে গেতাফের বিপক্ষে দারুণ জয় পেলেও আক্রমণে রোনালদোর মতো বারুদ ঠাসা ঝলক দেখানোর মতো কাউকে এখনও ভেড়ায়নি রিয়াল মাদ্রিদ। কাগজে কলমে রোনালদোর বিকল্প পাওয়া যাবে কিনা সেটাও আলোচনার দাবি রাখে। কারণ স্প্যানিশ জায়ান্টদের হয়ে রেকর্ড ৪৩৮ ম্যাচে ৪৫০ গোল করার কৃতিত্বটা রোনালদোরই। যদিও কোচ লোপেতেগিকে ভরসা রাখতে হচ্ছে মার্কো আসেনসিও, কারিম বেনজিমা ও বেলের ওপর! সামনের দিকে তারা দর্শককে মাঠে টানতে পারেন কিনা সেটাই এখন দেখার।