সর্বনিম্ন মোবাইল কলরেট চালুতে কতটা সুবিধা পাবেন গ্রাহকরা?

বাংলাদেশে আজ মঙ্গলবার থেকে সব অপারেটরে ৪৫ পয়সা কলরেট চালু হয়েছে। বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক কমিশন বলছে, গ্রাহকদের সুবিধার জন্য অনেক গবেষণা করে এই ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে।

বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক কমিশন বা বিটিআরসি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জহুরুল হক বলছিলেন, ‘যেমন আপনি গ্রামীণফোন থেকে অন্য অপারেটরে কথা বলবেন, সেক্ষেত্রে কলরেট ছিল অনেক বেশি। এখন আপনি যার সাথেই কথা বলেন কলরেট ৪৫ পয়সা।’ খবর বিবিসি’র

আরেকটা সুবিধার দিক উল্লেখ করে তিনি বলেন, যারা একটু দুর্বল অপারেটর তারা একটু শক্তিশালী হতে পারবে।

বিটিআরসি’র ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জহুরুল হক জানান, আগে গ্রামীণ টু বাংলালিংক নাম্বারে কথা বললে ৬০/৭০ পয়সা হতো। আর গ্রামীন টু গ্রামীণ কথা বললে ২৫ পয়সা হতো।

সারা বিশ্বে মোবাইল কলরেটের ক্ষেত্রে এই ব্যবস্থা আছে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

‘আমরা অনেক দিন ধরে স্টাডি করছিলাম, এর ফলে এখন অন্য অপারেটরগুলো ব্যবসা করতে পারবে।’

ফলে, এখন যেকোন অপারেটরে ফোন করলে প্রতি মিনিট রাত-দিন ৪৫ পয়সা কলরেট হবে।

তবে কোনো কোনো অপারেটর যেমন গ্রামীণ টু গ্রামীণ ২৫ পয়সা কলরেট ছিল, তাদের একটু অসুবিধা হবে বলে তিনি স্বীকার করেন।

তবে সার্বিকভাবে গ্রাহকের সুবিধেই হবে বলে উল্লেখ করেন হক।