নতুন রেকর্ডে নাম লেখালেন তামিম ইকবাল

ফুলকি ডেস্ক: ফ্লোরিডায় উল্লেখযোগ্য বাংলাদেশি সমর্থকদের সামনে টসে হেরে ব্যাট করতে নেমেছিল বাংলাদেশ। বাঁহাতি-ডানহাতি কম্বিনেশনের ভাবনা থেকে তামিম ও লিটনকে এই ম্যাচে ওপেন করতে দেখা যায়।

কিন্তু টপ অর্ডারে দ্রুত উইকেট পতন থামাতে পারেনি বাংলাদেশ। অফ স্পিনার অ্যাশলে নার্সের বলে ইনিংসের দ্বিতীয় ওভারে এক্সট্রা কাভার দিয়ে ইনসাইড আউট শট খেলার চেষ্টায় ক্যাচ আউট হন লিটন।

১ বল খেলে ১ রান যোগ করে দলীয় ৮ রানে আউট হন তিনি। লিটনের পথে হেঁটে নার্সকে উইকেট দেন আরেক ডানহাতি মুশফিকও। চতুর্থ ওভারে নার্সকে রিভার্স সুইপ করতে গিয়ে রাসেলের সহজ ক্যাচে থামে মুশফিকের ইনিংস।

চার নম্বর ব্যাটসম্যান হিসেবে ক্রিজে আসা সৌম্য সরকারও বিশেষ কিছু করে দেখায়ে পারেনি। ১৮ বলে ১৪ রান যোগ করে কিমো পোলের স্লোয়ার বলে আউট হন তিনি। অপর প্রান্ত থেকে একা হাতে দলের স্কোর বোর্ড সচল রাখার চেষ্টা করেন তামিম।

আরেক বাঁহাতি সাকিব আল হাসান ক্রিজে এসেই আগ্রাসী ব্যাটিং করার চেষ্টা করেন। ইনিংসের ১৪তম ওভারে এই জুটির ফিফটি পূর্ণ হয়। একই সাথে বাংলাদেশের স্কোর একশ ছাড়িয়ে যায় এই দুই অভিজ্ঞ ব্যাটসম্যানের হাত ধরে।

পরের ওভারেই ৩৫ বল খেলে টি-টুয়েন্টি সপ্তম ফিফটি পূর্ণ করেন তামিম, যা তামিমের ক্যারিয়ারের দ্রুততম ফিফটির রেকর্ড। ফিফটি পূর্ণ করার পর আরও ভয়ঙ্কর রুপ ধারন করেন টাইগার ওপেনার। বাউন্ডারি ও ওভার বাইন্ডারিতে দলের স্কোর দ্রুত বাড়াতে থাকেন তিনি।

রাসেলের বোলিংয়ে বিধ্বংসী ব্যাটিং করে ২২ রান তুলে নিয়ে বাউন্ডারি লাইনে ক্যাচ আউট হন তিনি। ৪৪ বল খেলে চারটি ছয় ও ছয়টি চারের সাহায্যে ৭৪ রানের ইনিংস খেলে আউট হন তামিম।