জিহাদের পরিবারকে ২০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণে হাইকোর্টের রায় আপিল বিভাগে বহাল

রাজধানীর শাজাহানপুরে পরিত্যক্ত ম্যানহোলে পড়ে নিহত শিশু জিহাদের পরিবারকে ২০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে হাইকোর্টের রায় বহাল রেখেছেন আপিল বিভাগ।

 

উদ্ধার তৎপরতার অবহেলার কারণে শিশু জিহাদের মৃত্যুর ঘটনায় তার পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দিতে হাইকোর্টের আদেশ স্থগিত চেয়ে আপিল করে রাষ্ট্রপক্ষ। পরে সুপ্রিমকোর্টের চেম্বার জজ আদালতে বিচারপতি হাসান ফয়েজ সিদ্দিক শুনানি শেষে তা আপিল বিভাগে পাঠান।

 

রবিবার হাইকোর্টের রায় বহাল রেখেছে আপিল বিভাগ।

এর আগে (অ্যাডভোকেট অন রেকর্ড) রাষ্ট্রপক্ষের অতিরিক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল মামতাজ উদ্দিন ফকির জিহাদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণ দেয়ার আদেশ স্থগিত চেয়ে আবেদন করেন রাষ্ট্রপক্ষ। আদালতের শুনানিতে রাষ্ট্রপক্ষে অ্যাডভোকেট মাহমুদা আক্তার ও অপরদিকে রিটকারীর পক্ষে শুনানি করেন অ্যাডভোকেট হরিদাস পাল।

 

গত ১৮ ফেব্রুয়ারি এ বিষয়ে জারি করা রুল নিস্পত্তি করে হাইকোর্টের বিচারপতি ফারাহ মাহবুব ও বিচারপতি কাজী মো. ইজারুল হক আকন্দের বেঞ্চ এই রায় দেন। তবে জিহাদের পরিবারকে কত টাকা ক্ষতিরপূরণ, আর ক্ষতিপূরণ কে দেবে তা পূর্ণাঙ্গ রায়ে প্রকাশ করা হবে বলে জানিয়েছেন রিটকারী আইনজীবী ব্যারিস্টার আব্দুল হালিম। পরে শিশু জিহাদের পরিবারকে ২০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে হাইকোর্ট পূর্ণাঙ্গ রায় দেয়।

 

এর আগে এ বিষয়ে করা রিটের শুনানি নিয়ে ২০১৫ সালের ১৫ ফেব্রুয়ারি শিশু জিহাদের পরিবারকে ৩০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দিতে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেন একই বেঞ্চ। সেই সঙ্গে শিশু জিহাদের মৃত্যুতে ফায়ার সার্ভিস, ওয়াসা রেলওয়ে ও সিটি কর্পোরেশনের অবহেলা কেন অবৈধ ঘোষণা করা হবে না এবং ফায়ার সার্ভিস, ওয়াসা ও রেলওয়ে কর্তৃপক্ষকে সারাদেশে কতোগুলো অরক্ষিত পাইপ, ঢাকনাবিহীন পাইপের গর্ত ম্যানহোল ও পয়ঃনিষ্কাশন পাইপ রয়েছে তার একটি তালিকা তৈরি করতে কেন নির্দেশ দেয়া হবে না- তাও জানতে চান আদালত।

 

ভবিষ্যতে এ ধরণের ঘটনা ঘটলে কারা দায়ী থাকবেন, বা কী ধরণের ক্ষতিপূরণ দিতে এ বিষয়ে একটি গাইডলাইন দেন আদালত। ১৯৮৩ সালে ভারতে ক্ষতিপূরণের বিষয়টি চালু হয়। কিন্তু বাংলাদেশে ৪৫ বছরের মধ্যে এটাই প্রথম।

 

২০১৪ সালের ২৮ ডিসেম্বর জিহাদের পরিবারের জন্য ৩০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার নির্দেশনা চেয়ে চিল্ড্রেন চ্যারিটি বাংলাদেশ ফাউন্ডেশনের পক্ষে সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার আব্দুল হালিম হাইকোর্টে রিটটি দায়ের করেন।

 

২০১৪ সালের ২৬ ডিসেম্বর শাহজাহানপুর রেল কলোনিতে খোলা থাকা কয়েকশ ফুট গভীর একটি নলকূপের পাইপে পড়ে যায় চার বছরের জিহাদ। প্রায় ২৩ ঘণ্টা রুদ্ধশ্বাস অভিযানে ক্যামেরা নামিয়েও ফায়ার সার্ভিস কোনো মানুষের ছবি না পাওয়ায় পাইপে জিহাদের অস্তিত্ব থাকা নিয়ে সন্দেহ তৈরি হয়।

 

এরপর উদ্ধার অভিযান স্থগিতের ঘোষণা দেয় ফায়ার সার্ভিস। এর কয়েক মিনিট পর কয়েকজন তরুণের তৎপরতায় তৈরি করা যন্ত্রে পাইপের নিচ থেকে উঠে আসে অচেতন জিহাদ। হাসপাতালে নেয়া হলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন।