বাধ্যতামূলক কার্যকর ৯ আগস্ট থেকে ব্যাংকঋণে সর্বোচ্চ ৯ ও আমানতে সুদ ৬ শতাংশ

স্টাফ রিপোর্টার : সব ব্যাংককে বাধ্যতামূলকভাবে ঋণের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ ৯ শতাংশ এবং আমানতের ক্ষেত্রে ৬ শতাংশ সুদ মানতে হবে। যেসব ব্যাংক এখনো এটা কার্যকর করেনি তাদের আগামী ৯ আগস্ট থেকে এটা অবশ্যই কার্যকর করতে হবে। এটা সরকারি-বেসরকারি সব ব্যাংকের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। গতকাল বৃহস্পতিবার ব্যাংক মালিকদের সংগঠন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকস (বিএবি) এবং ব্যাংক নির্বাহীদের সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের (এবিবি) নেতাদের সঙ্গে শেরে বাংলা নগরে অনুষ্ঠিত এক বৈঠক শেষে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।

অর্থনীতির স্বাস্থ্য বিষয়ে অর্থমন্ত্রী বলেন, মার্কেটে কতোগুলো ‘ফলস ইমপ্রেশন’ আছে। সেগুলো নিয়ে আমার কথা বলা উচিত। প্রথম কথা হলো দেশে কোনো তারল্য সঙ্কট নেই। পর্যাপ্ত তারল্য রয়েছে। সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, সরকারি প্রতিষ্ঠানের আমানতের ৫০ শতাংশ বেসরকারি ব্যাংকে রাখা যাবে।

এটা খুবই সহায়ক হবে। তিনি আরো বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘোষণা দিয়েছেন, আমানতের সর্বোচ্চ সুদ হবে ৬ শতাংশ। কোনো ব্যাংক কম দিলে সেটা ভিন্ন কথা। ঋণের সুদহার কোনোভাবে ৯ শতাংশের বেশি হবে না। কিন্তু সেখানে কিছু ব্যাংকের আপত্তি আছে, ভোক্তা ঋণ ও ক্রেডিট কার্ডের ঋণের সুদ নিয়ে। এ ক্ষেত্রে ৯ শতাংশ সুদ না মানলেও চলবে। অর্থমন্ত্রী বলেন, সব ব্যাংকের পরিচালক ও নির্বাহী কর্মকর্তারা বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন। তারা সবাই এ সুদহার কার্যকর করার বিষয়ে প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন।

এছাড়া আগামী ৮ আগস্ট সঞ্চয়পত্রের মুনাফার হার পর্যালোচনার সিদ্ধান্ত আসবে বলেও জানান অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। চলতি বছরের জুলাই থেকে ব্যাংক ঋণের সুদহার ৯ শতাংশে এবং আমানতের সুদহার ৬ শতাংশে নামিয়ে আনার ঘোষণা আগেই দিয়েছিল বিএবির নেতারা। সেই মোতাবেক বেশ কিছু ব্যাংক জুলাই মাসের প্রথম থেকে এ সুদহার কার্যকর করেছিল। তবে কোনো কোনো ব্যাংক তহবিল ব্যয় বেশি থাকায় এ সুদহার কার্যকর করেনি।

তবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঋণের সুদহার সিঙ্গেল ডিজিটে নামিয়ে আনার সিদ্ধান্ত নেওয়ায় এটা কার্যকর করার বিষয়ে গতকাল জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের ব্যাংক পরিচালক ও এমডিদের সঙ্গে বৈঠক করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। সুদহার কমানোর বিষয়ে এর আগে গত ২৭ জুন বৈঠকে বসেন ব্যাংকের এমডিরা। তাছাড়া গত ৮ জুন বাজেট প্রস্তাবনা পরবর্তী সংবাদ সম্মেলনে জুন-জুলাইয়ের মধ্যে সঞ্চয়পত্রের মুনাফার হার পর্যালোচনা হবে বলেও ঘোষণা দিয়েছিলেন অর্থমন্ত্রী। এদিকে গতকাল রাতে কর্পোরেশনগুলোর সঙ্গে অর্থমন্ত্রীর বৈঠক করার কথা রয়েছে। কর্পোরেশনগুলো যাতে কম সুদে ব্যাংকে আমানত রাখে সে বিষয়ে নির্দেশনা আসতে পারে বলে জানা গেছে।