শাহবাগে শিক্ষার্থীদের অবরোধ, নৌমন্ত্রীর কুশপুত্তলিকা দাহ

: রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কে বাসচাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহতের ঘটনায় দ্রুত বিচার ও নিরাপদ সড়কের দাবিতে রাজধানীর শাহবাগে অবস্থান নিয়েছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা।

দ্রুত বিচার ও ফাঁসি দাবিতে বিভিন্ন স্লোগান দিচ্ছেন শিক্ষার্থীরা। এছাড়াও,দুই শিক্ষার্থী নিহতের খবর শুনে হাসির কারণে নৌমন্ত্রী শাজাহান খানের কুশপু্ত্তলিকা দাহ করে শিক্ষার্থীরা।

বুধবার সকাল দুপুর ১২টার দিকে শিক্ষার্থীরা সেখানে অবস্থান নেয়। বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থীরা খণ্ড খণ্ড মিছিল সহকারে সেখানে যোগ দেয়। এতে যান চলাচল বন্ধ হয়ে শাহবাগ মোড়মুখী সড়কগুলো স্থবির হয়ে পড়েছে।

জড়িতদের বিচারের দাবিতে রাজধানীর শাহবাগে অবস্থান নিয়েছে শিক্ষার্থীরা সেখানে নৌমন্ত্রীর কুশপুত্তলিকা দাহ করে।

এর আগে সকাল সাড়ে ১০টার দিকে ফার্মগেট এলাকায় অবস্থান নেয় সরকারি বিজ্ঞান কলেজের শিক্ষার্থীরা। এসময় তাদের সাথে যোগ দেয় বিএফ শাহীন কলেজের শিক্ষার্থীরা। এরপর মিছিল নিয়ে শিক্ষার্থীরা কারওয়ান বাজার, বাংলামোটর, শাহবাগ হয়ে সাইন্সল্যাব এলাকায় অবস্থান নিয়েছে। এসময় তাদের সাথে যোগ দিয়েছে, সিটি কলেজ, ঢাকা কলেজ, আইডিয়াল কলেজ, মোহাম্মদপুর সরকারি কলেজ, শহীদ পুলিশ স্মৃতি কলেজ ইত্যাদি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, ফার্মগেট থেকে শিক্ষার্থীরা সাইন্সল্যাব এলাকায় যাওয়ার সময় সরকারি বিআরটিসি বাসসহ সকল গণপরিবহন ও চালকদের লাইসেন্স আছে কি না তা চেক করেন। এসময় মন্ত্রী ও মন্ত্রণালয়ের গাড়িও আটকে দেয় শিক্ষার্থীরা। বেলা ১১টার দিকে বাংলামোটর এলাকায় নৌ মন্ত্রণালয়ের একটি গাড়ি আটকে গাড়ির লাইসেন্স আছে কি না তা জিজ্ঞাসা করে শিক্ষার্থীরা। লাইসেন্স আছে জানালে তারা গাড়িটি ছেড়ে দেয়।

এর আগে সোনারগাঁওয়ের সামনে একটি মন্ত্রীর গাড়ি আটকে দেয় শিক্ষার্থীরা। এসময় নিরাপত্তাকর্মীরা বের হয়ে মন্ত্রীর গাড়ি বললে ছেড়ে দেয় শিক্ষার্থীরা। সেখান থেকে শাহবাগে অবস্থান নেয় শিক্ষার্থীরা। এসময় পুলিশ তাদের বাধা দেয়। এসময় অনেক পুলিশকে হাত জোর করে আন্দোলন থামানোর জন্য অনুরোধ করতে দেখা গেছে।

২৯ জুলাই রাজধানীর বিমানবন্দর সড়কের ফুটপাতে বাসের চাপায় দুই শিক্ষার্থী নিহত হয়। এ দুর্ঘটনার পর সাংবাদিকদের হাসিমুখে প্রতিক্রিয়া দিয়ে তীব্র সমালোচনার মুখে পড়েন নৌমন্ত্রী শাজাহান খান।