তামিম-সৌম্যের কল্যানে অনাকাঙ্খিত রেকর্ড বইয়ে বাংলাদেশ

ফুলকি ডেস্ক: তিন ওয়ানডেতে পেয়েছেন দুই সেঞ্চুরি ও এক হাফ সেঞ্চুরির দেখা। কিন্তু টি-টোয়েন্টি আসতেই যেন খেই হারালেন তামিম ইকবাল। উইন্ডিজের বিপক্ষে তিন ম্যাচ সিরিজের প্রথম টি-টোয়েন্টিতে প্রথম বলে স্টাম্পিংয়ের শিকার হন বাঁহাতি এই ওপেনার। আরেক ওপেনার সৌম্য সরকারও বিদায় নেন নিজের প্রথম বলে। নিজেদের প্রথম বলেই আউট হয়ে অনাকাঙ্ক্ষিত দুটি রেকর্ডের জন্ম দিলেন জাতীয় দলের এই দুই ওপেনার।

১ আগস্ট, বুধবার সেন্ট কিটসের ওয়ার্নার পার্কে টস হেরে ব্যাট করতে নামে বাংলাদেশ। কিন্তু শুরুতেই বাংলাদেশ শিবিবে ধাক্কা। অ্যাশলে নার্সের করা ইনিংসের প্রথম বলটি ডাউন দ্য উইকেটে এসে খেলতে যান তামিম। কিন্তু ব্যাটে-বলে না হওয়ায় স্ট্যাম্পিংয়ের কবলে পড়েন দেশসেরা এই ওপেনার। তাতেও তামিমের সঙ্গী রেকর্ড!

আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে ইনিংসের প্রথম বলেই আউট হওয়ার নজির ৩২টি। এর মধ্যে ম্যাচের প্রথম বলেই আউট হওয়ার নজির ১৬টি। বাকি ১৬ জন আউট হয়েছেন দ্বিতীয় ইনিংসের প্রথম বলে। অবশ্য একটি জায়গায় সবার চেয়েই আলাদা তামিম। তিনিই আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টির ইতিহাসে ইনিংসের প্রথম বলে স্ট্যাম্পিংয়ের ফাঁদে পড়ে আউট হওয়া একমাত্র ব্যাটসম্যান।

মাত্র ৩ বলের ব্যবধানে তামিমের ‘গোল্ডেন ডাক’-কে অন্য মাত্রা দিয়েছেন সৌম্য। ওই ওভারের চতুর্থ বলে প্রথমবারের মতো স্ট্রাইকিং প্রান্তে যান তিনি। কিন্তু নার্সের নিখুঁত লেংথের ডেলিভারিটি ব্যাক ফুটে খেলতে গিয়ে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফিরে যান তিনি।

ব্যাস! দুই ওপেনার মিলে জন্ম দিলেন আরেকটি রেকর্ড, যেটা পূর্ণ হয়েছে চতুর্থ বলে সৌম্যর বোল্ড হওয়ার মধ্য দিয়ে। এর আগে আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে একই ইনিংসে দুই ওপেনারের ‘গোল্ডেন ডাক’ মারার কোনো নজির ছিল না। কিন্তু সেই রেকর্ডের জন্ম দিলেন বাংলাদেশের দুই ওপেনার।

ক্রিকেটের এই ক্ষুদ্রতম সংস্করণে এখন পর্যন্ত দুই ওপেনারের রান না করে আউট হওয়ার ঘটনা ঘটেছে তেরবার। যার মধ্যে সবচেয়ে বেশি তিনবার কোনো রান করেই আউট হয়েছেন বাংলাদেশি ওপেনাররা। নেদারল্যান্ডসের ওপেনাররা দুইবার এবং বাকি আটটি দলের ওপেনাররা আউট হয়েছেন একবার করে।