শিক্ষককে ‘টাক’ বলায় সাত ঢাবি শিক্ষার্থী বহিষ্কার

ফুলকি ডেস্ক: ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) মনোবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক ড. এ কে এম রেজাউল করিমকে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ‘টাক’ বলে মন্তব্য করার অভিযোগে ওই বিভাগের সাত শিক্ষার্থীকে বিভিন্ন মেয়াদে বহিষ্কার করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

সোমবার (৩০ জুলাই) বিভাগ থেকে প্রকাশিত এক নোটিশে এ বহিষ্কারের কথা জানা যায়। এর আগে ১০ জুলাই বিশ্ববিদ্যালয়ের সিন্ডিকেটের এক সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

বহিষ্কৃত শিক্ষার্থীরা হলেন- ২০১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের খাইরুন নিসা, উম্মে হাবিবা তানজিলা; ২০১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের মিনহাজুল আবেদিন, ফাতিমা, সামিরা মাহজাবিন; ২০১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের আব্দুল্লাহ-হীল-বাকী, অদিতি সরকার।

এদের মধ্যে খাইরুন নিসা ও মিনহাজুল আবেদীনকে এক বছর ও বাকিদের ছয় মাসের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করা হয়।

জানা গেছে, ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে সেমিস্টার ফাইনাল পরীক্ষার সময় পরীক্ষার হলে অধ্যাপক ড. একেএম রেজাউল করিম কয়েকজন শিক্ষার্থীকে শাস্তি দেন। এ নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে একজন শিক্ষার্থী ফেসবুকে স্ট্যাটাস দেন।

অন্য শিক্ষার্থীরাও সেখানে নিজেদের ক্ষোভের কথা প্রকাশ করে মন্তব্য করে এবং শিক্ষককে ‘টাক’ বলেও মন্তব্য করে। বিষয়টি জানার পর বিভাগের একাডেমিক কমিটি তদন্ত করে সিদ্ধান্ত জানায় কর্তৃপক্ষ।

এই বিষয়ে মনোবিজ্ঞান বিভাগের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ড. মাহফুজা খানম বলেন, ‘এটা বিশ্ববিদ্যালয় ও প্রক্টরিয়াল বডির সিদ্ধান্ত। এ বিষয়ে আমার কোনও মন্তব্য নেই।’