কোটা সংস্কার: সরকারকে তিন দফা শর্ত দিয়ে ক্লাসে ফিরে যাবার ঘোষণা

ফুলকি ডেস্ক: সরকারি চাকরিতে কোটা সংস্কারের দাবিতে আন্দোলনকারীরা সরকারকে তিন দফা শর্ত দিয়ে অবিলম্বে কোটা সংস্কারের প্রজ্ঞাপন দিতে বিক্ষোভ মিছিল করেছেন। ক্লাস-পরীক্ষা বর্জনের দাবি থেকে সরে যাওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন আন্দোলনকারীরা।

লাইব্রেরির সামনে থেকে মিছিল বের করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন স্থানে সেই মিছিল নিয়ে যান তাঁরা। এ সময় মিছিল কেন্দ্রীয় শহীদ মিনার হয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজু ভাস্কর্যের সামনে এসে শেষ হয়।

বিক্ষোভ শেষে সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক বলেন, ‘আমরা ক্লাস-পরীক্ষা বর্জনের যে ঘোষণা দিয়েছিলাম, তা তুলে নিলাম। আমাদের তিনটি শর্ত অবিলম্বে বাস্তবায়ন করতে হবে। সেগুলো হচ্ছে গ্রেপ্তারকৃত আন্দোলনকারীদের মুক্তি, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের ওপর হামলাকারীদের বিচার এবং পাঁচ দফা দাবি মেনে নিয়ে অবিলম্বে কোটা সংস্কারের প্রজ্ঞাপন জারি করা।’

নুরুল হক বলেন, ‘আমরা যেকোনো সময় সরকারের সঙ্গে বসতে রাজি। প্রধানমন্ত্রী আমাদের একটু সময় দিলেই আমরা কোটা সংস্কারের বিষয়টি তাঁকে বুঝিয়ে বলব।’ ‘আপাতত আমরা কোনো কর্মসূচি ঘোষণা করছি না। তবে আমাদের কোনো ভাই বা বোনের গায়ে একটু আঁচড় লাগলে আমরা আবার কঠোর আন্দোলনে নামব।’

তথ্যপ্রযুক্তি আইনের এক মামলায় ১ জুলাই গ্রেপ্তার হন সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক রাশেদ খান। এ ছাড়া ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের বাসভবনে হামলা, পুলিশের বিশেষ শাখার সদস্যের মোটরসাইকেল ভাঙচুর ও ওয়াকিটকি কেড়ে নেওয়ার অভিযোগে গত ১০ এপ্রিল শাহবাগ থানায় পৃথক তিনটি মামলা হয় আন্দোলনকারীদের বিরুদ্ধে। রাশেদ খানের পর বিভিন্ন মামলায় গ্রেপ্তার হন ফারুক হোসেন, তরিকুল, জসিমউদ্দিন, মশিউর, আমানুল্লাহ, মাজহারুল, জাকারিয়া, রমজান ওরফে সুমন ও রবিন।