বিশ্বের তৃতীয় ক্রিকেটার হিসাবে বিশ্ব রেকর্ড গড়লেন সাকিব

ফুলকি ডেস্ক: ক্রিকেট ইতিহাসে জ্যাক ক্যালিসের পর বিশ্বের সেরা অলরাউন্ডার বলা হয় বাংলাদেশের সাকিব আল হাসানকে। বাংলাদেশে কি আরেববার জন্ম নিবে আন্তজাতীক ক্রিকেটে ১০ হাজার রান এবং ৫০০ উইকেট নেওয়ার মত কনো অলরাউন্ডার? সেটা হয়ত ভবিষ্যৎই বলবে তবে বর্তমান সময়েই রয়েছে একজন।

বাংলাদেশ ক্রিকেটে ১১ হাজার রান করেছেন তামিম ইকবাল। রানের দিক থেকে সাকিবের উপরের রয়েছে একমাত্র তামিম ইকবাল। তবে তামিমের থেকে অনেক এগিয়ে সাকিব। তার কারন ১০ হাজার রানের পাশে রয়েছে ৫০৮ উইকেট। বাংলাদেশের প্রথম ক্রিকেটার এবং বিশ্বের তৃতীয় ক্রিকেটার হিসাবে আন্তজাতীক ক্রিকেটে ১০ হাজার রান এবং ৫০০ উইকেটের রেকর্ড গড়লেন তিনি।

এখন পর্যন্ত ৫৩ টেস্টের ১০০ ইনিংসে ব্যাট করে সাকিব ৩৯.৬৯ গড়ে ৩৬৯২ রান করেছেন। রয়েছে পাঁচটি সেঞ্চুরি ও ২৩টি হাফসেঞ্চুরি। সাদা পোশাকে তার সর্বোচ্চ ইনিংস ২১৭ রান। এটি আবার বাংলাদেশের ইতিহাসেও সর্বোচ্চ। সমান টেস্টে ৮৯ ইনিংসে বল করে পেয়েছেন ১৯৬টি উইকেট। যেখানে বোলিং গড় ৩১.৮৮ ও ইকোনোমি ৩.০০। ১০ উইকেট পেয়েছেন দু’বার। আর ৫ উইকেট পেয়েছেন ১৮বার। এক ম্যাচে তার সেরা বোলিং ফিগার ১২৪ রানে ১০ উইকেট। আর এক ইনিংসে ৩৬ রানের বিনিময়ে ৭ উইকেট।

ওয়ানডেতে সাকিবের ক্যারিয়ার আরও সমৃদ্ধ। ১৮৬ ম্যাচে ব্যাট করার সুযোগ পেয়েছেন ১৭৫ বার। যেখানে ৩৫.৩৬ গড়ে করেছেন ৫৩৪০ রান। রয়েছে ৭টি সেঞ্চুরি ও ৩৮টি হাফসেঞ্চুরি। এক ম্যাচে তার সেরা ১৩৪ (অপরাজিত)। আর ১৮৩ ইনিংসে বল করে ২৯.৪৬ গড় ও ৪.৪৪ ইকোনোমিতে নিয়েছেন ২৩৫টি উইকেট। ম্যাচে ৫ উইকেট নিয়েছেন একবার। সেরা বোলিং ফিগার ৪৭ রানে ৫ উইকেট।

৬৬টি টি-টোয়েন্টি খেলে ১২০.৬৮ স্ট্রাইক রেটে করেছেন ১২৬৫ রান। রয়েছে ৬টি হাফসেঞ্চুরি। আর ৬৫ ইনিংসে হাত ঘুরিয়ে নিয়েছেন ৭৭ উইকেট। ইকোনোমি ৬.৭৮। সেরা বোলিং ফিগার ১৫ রানের বিনিময়ে ৪ উইকেট।

সাকিবের আগে এই রেকর্ড আছে মাত্র ২ জন ক্রিকেটারের। এক দক্ষিণ আফ্রিকার জ্যাক ক্যালিস। আর দুই পাকিস্তানের সাইদ আফ্রিদী। জ্যাক ক্যালিস ২৫ হাজার রান সহ নিয়েছেন ৫৭৭ উইকেট এবং আফ্রিদী ১১ হাজার রান সহ নিয়েছেন ৫০০ উইকেট।