প্রয়োজনে সরাসরি আমার সঙ্গে যোগাযোগ করবেন: প্রধানমন্ত্রী

স্টাফ রিপোর্টার : দল বিবেচনা না করে বিনাদ্বিধায় সন্ত্রাস, মাদক, খাদ্যে ভেজালসহ অনৈতিক কাজ বন্ধ করার নির্দেশ দিয়ে জেলা প্রশাসকদের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, প্রয়োজনে সরাসরি আমার সঙ্গে যোগাযোগ করবেন।

মঙ্গলবার প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে জেলা প্রশাসক সম্মেলন উদ্বোধন অনুষ্ঠানে সরকারের মাঠ পর্যায়ের কর্মকর্তাদের এ নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। অনুষ্ঠানে জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী, মন্ত্রী পরিষদ সচিব, মুখ্য সচিব বক্তব্য রাখেন।

মাদক, সন্ত্রাস, খাদ্যে ভেজাল, অনৈতিক কর্মকাণ্ড, সরকারি সেবা সুষ্ঠুভাবে নিশ্চিত করা, বাল্যবিয়ে রোধ, সুশাসন প্রতিষ্ঠা, গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন, সামাজিক বৈষম্য হ্রাস, কর্মসংস্থান সৃষ্টি, তথ্য প্রযুক্তির প্রসারসহ ২৩টি বিষয়ে জেলা প্রশাসকদের গুরুত্বপূর্ণ দিক নির্দেশনা দেন প্রধানমন্ত্রী। নির্দেশনাগুলো হলো-১. সরকারি সেবা পেতে সাধারণ মানুষ যাতে কোনোভাবেই হয়রানি বা বঞ্চনার শিকার না হন, সেদিকে কঠোর নজরদারি রাখতে হবে।

২. যুব সমাজকে মাদকের হাত থেকে রক্ষা করতে হবে। মাদকবিরোধী অভিযান চলবে। ৩. জঙ্গিবাদ, সন্ত্রাস ও সাম্প্রদায়িকতা দূর করে সর্বক্ষেত্রে শান্তি-শৃঙ্খলা ও স্থিতিশীলতা বজায় রাখতে আপনাদের আরও নিষ্ঠার সঙ্গে দায়িত্ব পালন করতে হবে। ৪. গ্রামীণ অবকাঠামো উন্নয়ন, সম্ভাবনাময় স্থানীয় ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের বিকাশ এবং কর্মসংস্থান সৃষ্টির মাধ্যমে দারিদ্র্য বিমোচনে উদ্যোগী হতে হবে। ৫. তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির উন্নয়ন ও বিকাশে নেতৃত্ব দিতে হবে। ৬. তৃণমূল পর্যায়ে সুশাসন প্রতিষ্ঠায় জনপ্রতিনিধিদের সঙ্গে একাত্ম হয়ে কাজ করতে হবে।

৭. শিক্ষার সবস্তরে নারীশিক্ষার হার বৃদ্ধি, ঝরেপড়া শিক্ষার্থীদের মূলধারায় ফিরিয়ে আনার পদক্ষেপ নিতে হবে। ৮. ভূমি প্রশাসন ও ব্যবস্থাপনায় স্বচ্ছতা ও দক্ষতা বৃদ্ধি এবং সরকারি ভূমি রক্ষায় সজাগ দৃষ্টি রাখতে হবে। ৯. কৃষি উৎপাদন বৃদ্ধিতে সার, বীজ, বিদ্যুৎ, জ্বালানি ইত্যাদির সরবরাহ নির্বিঘ্ন করার লক্ষ্যে প্রয়োজনীয় সব পদক্ষেপ নিতে হবে। ১০. ভেজাল খাদ্যদ্রব্য বাজারজাত প্রতিরোধে ব্যাপক গণসচেতনতা সৃষ্টি করতে হবে এবং এ ধরনের অনৈতিক কর্মকাণ্ড কঠোর হাতে দমন করতে হবে। ১১. দরিদ্র ও সুবিধাবঞ্চিত জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্যসেবা নিশ্চিত করতে কমিউনিটি ক্লিনিকের কার্যক্রম আরও জোরদার করতে হবে।

১২. পরিবেশ রক্ষায় জনসচেতনতা বৃদ্ধি এবং এই সংক্রান্ত আইন ও বিধি-বিধানের যথাযথ প্রয়োগ নিশ্চিত করতে হবে। ১৩. প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও বিপর্যয় প্রশমনে ‘দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা আইন ২০১২’ এবং এ সংক্রান্ত স্থায়ী নির্দেশনাবলি অনুসারে সঠিক সময়ে সঠিক পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। ১৪. সাধারণ মানুষকে সহজে সুবিচার প্রদান ও আদালতে মামলার জট কমাতে গ্রাম আদালতগুলোকে কার্যকর করতে হবে।

১৫. জেলা প্রশাসকরা জেলাপর্যায়ে বিভিন্ন কমিটির প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। এসব কমিটিকে সক্রিয়, গতিশীল ও ফলপ্রসূ করতে হবে। ১৬. দপ্তরসমূহের বিদ্যমান সেবাসমূহ তৃণমূলে পৌঁছানোর লক্ষ্যে তথ্য মেলা, সেবা সপ্তাহ পালনসহ ইত্যাদি কার্যক্রম জোরদার করতে হবে। ১৭. শিল্পাঞ্চলে শান্তি রক্ষা, পণ্য পরিবহন ও আমদানি-রফতানি নির্বিঘ্ন করা এবং চাঁদাবাজি, টেন্ডারবাজি, পেশিশক্তি ও সন্ত্রাস নির্মূল করার ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। ১৮. বাজার ব্যবস্থার সার্বক্ষণিক পর্যবেক্ষণের প্রতি গুরুত্বারোপ করতে হবে। বাজারে কৃত্রিম সঙ্কট সৃষ্টির যেকোনো অপচেষ্টা কঠোর হাতে দমন করতে হবে।

১৯. নারী ও শিশু নির্যাতন এবং পাচার, যৌতুক, ইভটিজিং এবং বাল্যবিয়ে বন্ধ করতে নজরদারি বাড়াতে হবে। ২০. নারীর প্রতি সহিংসতা, নিপীড়ন ও বৈষম্যমূলক আচরণ বন্ধে যথাযথ আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ নিশ্চিত করতে হবে। ২১. নিজ নিজ জেলায় ক্রীড়া, বিনোদন ও সৃজনশীল সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডের সুযোগ বাড়াতে হবে। শিশু-কিশোরদের মধ্যে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, সংস্কৃতিবোধ ও বিজ্ঞানমনস্কতা জাগিয়ে তুলতে হবে। ২২. প্রতিবন্ধী, অটিস্টিক ও পিছিয়ে থাকা জনগোষ্ঠীর কল্যাণে বিশেষ পদক্ষেপ গ্রহণ করতে হবে। ২৩. পার্বত্য জেলাসমূহের ভূ-প্রাকৃতিক বৈশিষ্ট্য, বনাঞ্চল, নদী-জলাশয়, প্রাণিসম্পদ এবং গিরিশৃঙ্গগুলোর সৌন্দর্য সংরক্ষণ করতে হবে। এছাড়া পর্যটনশিল্প, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প এবং কুটিরশিল্পের বিকাশে সর্বাত্মক সহযোগিতা দিতে হবে।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আওয়ামী লীগ সরকার দুই মেয়াদ পূর্ণ করায় দেশের গতিশীল উন্নয়ন হচ্ছে। আমরা এবার ৬৪ হাজার ৫৭৩ কোটি টাকার বাজেট দিতে পেরেছি। এখন আমাদের ভিক্ষা চাইতে হয় না, কারও সাহায্য চাইতে হয় না।’

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘আমরা ইনফ্লেশন কমিয়ে এনেছি। ইনফ্লেশন নিয়ন্ত্রণে থাকলে এবং প্রবৃদ্ধি বাড়লে দরিদ্র মানুষ এর সুফল ভোগ করতে পারে।’ প্রধানমন্ত্রী এসময় ঔপনিবেশিক মানসিকতা পরিহার করে সততার সাথে জনগণের সেবার করতে জেলা প্রশাসকদের নির্দেশ দিয়েছেন এবং সরকারের নেওয়া উন্নয়ন প্রকল্পগুলো যাতে সঠিকভাবে বাস্তবায়ন হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখতে জেলা প্রশাসকদের নির্দেশনা দিয়েছেন । ডিসি সম্মেলনকে সামনে রেখে এর আগে মোট ৩৪৭টি প্রস্তাব পাঠিয়েছেন ডিসিরা। তারা নিজেদের প্রস্তাব ও সুপারিশ লিখিত আকারে পাঠিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগে। সম্মেলনের দ্বিতীয় দিন (২৫ জুলাই) সন্ধ্যায় ডিসিরা বঙ্গভবনে রাষ্ট্রপতির সঙ্গে মতবিনিময় করবেন এবং রাতের খাবার খাবেন। তৃতীয় দিনের (২৬ জুলাই) অনুষ্ঠান শেষে সম্মেলনের বিষয়বস্তু সম্পর্কে সাংবাদিকদের প্রেস ব্রিফিং করবে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ।

এই সম্মেলনে সরকারি সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করতে গিয়ে মাঠ পর্যায়ে মুখোমুখি হওয়া নানা প্রতিবন্ধকতা ও সমস্যার কথা প্রধানমন্ত্রীর সামনে খোলামেলাভাবে তুলে ধরবেন ডিসিরা। উদ্বোধনের পর বাকি অধিবেশনগুলো হবে সচিবালয়ের মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সভাকক্ষে।