হলি আর্টিজান হামলা : চার্জশিটে যে কারণে নাম নেই হাসনাত করিমের

বিশেষ প্রতিবেদন: হলি আর্টিসানে হামলার ঘটনায় নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক শিক্ষক হাসনাত করিমকে গ্রেফতার এবং জিজ্ঞাসাবাদ করা হলেও মামলার অভিযোগ থেকে তার নাম বাদ দেয়া হয়েছে।

সোমবার (২৩ জুলাই) হলি আর্টিসানে হামলার তদন্ত প্রতিবেদন আদালতে জমা দিয়েছে পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিট। এতে নিহত ও জীবিত ২১ অভিযুক্তের নাম উল্লেখ করা হয়েছে।

২০১৬ সালের ১ জুলাই দেশ কাঁপানো এই হামলার সময় হাসনাত করিম এবং তার স্বজনরাও ছিলেন রেস্টুরেন্টটিতে। কিন্তু জঙ্গিরা তাদের কাউকেই কিছু বলেনি। আবার হামলার পরদিন ভোরে রেস্টুরেন্টের ছাদে হাসনাত করিমের সঙ্গে হামলাকারী একাধিক তরুণকে দেখা গেছে। পাশের ভবন থেকে একজন কোরিয়ান নাগরিকের ধারণ করা ভিডিওতে মনে হয়েছে তারা সেখানে আলোচনা করছেন।

এ কারণে হাসনাত করিম এই হামলায় জড়িত বলে সে সময় ধারণা করা হয়। আবার নর্থ সাউথে শিক্ষকতা করার সময় উগ্রপন্থী ও নিষিদ্ধ সংগঠন হিযবুত তাহরীরের সঙ্গে তার সম্পৃক্ততা এবং এই সংগঠনকে পৃষ্ঠপোষকতা করার অভিযোগ আছে হাসনাতের বিরুদ্ধে।

জঙ্গি হামলার পর সেনা অভিযানে উদ্ধার জঙ্গিদের মধ্যে ‘রহস্যজনক’ আচরণের কারণে হাসনাত করিমকে গোয়েন্দা কার্যালয়ে নেওয়া হয়। ঘটনার কয়েকদিন পর হাসনাতকে ছেড়ে দেওয়ার কথা পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হলেও তাকে আর ছাড়া হয়নি।

পওে ৩ আগস্ট রাজধানীর একটি বাড়ি থেকে হাসনাত করিমকে ৫৪ ধারায় সন্দেহভাজন হিসেবে গ্রেপ্তার করা হয়। ৪ আগস্ট প্রথম দফায় হাসনাতের আট দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন আদালত। রিমান্ড শেষে ১৩ আগস্ট হলি আর্টিজান মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়। ২৪ আগস্ট হাসনাত করিমের জামিনের আবেদন নাকচ করে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেয় আদালত। হাসনাত করিম বর্তমানে কাশিমপুর কারাগারে রয়েছেন।

তবে আদালতে অভিযোগপত্র জমা দেয়ার পর সোমবার দুপুরে ডিএমপির মিডিয়া সেন্টারে ঢাকা মহানগর পুলিশের কাউন্টার টেরোরিজম অ্যান্ড ট্রান্স ন্যাশনাল ইউনিটের প্রধান মনিরুল ইসলাম নিশ্চিত করেন, তারা যাদের বিরুদ্ধে প্রতিবেদন দিয়েছেন, তাদের মধ্যে হাসনাত করিমের নাম নেই।

মনিরুল বলেন, ‘ হামলার ঘটনায় ২১ জনের জড়িত থাকার প্রমাণ পেয়েছি। এরমধ্যে ১৩ জন বিভিন্ন অভিযানে নিহত হয়েছেন। নিহতদের ভূমিকা উল্লেখ করে মামলা থেকে তাদের অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে। বাকি আটজনকে সরাসরি অভিযুক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে দুই জন এখনও পলাতক।’

হামলা সম্পর্কে হাসনাত করিমের বক্তব্য কি? জানতে চাইলে মনিরুল ইসলাম বলেন, নব্য জেএমবির একটি সাংগঠনিক পরিকল্পনা নিয়ে এ হামলা করা হয়েছে। তাদের এ পরিকল্পনার কোথাও হাসনাত করিমের সম্পৃক্ততা পাওয়া যায়নি। এ ছাড়া যারা জীবিত গ্রেফতার হয়েছে তাদের কথায়ও হাসনাত করিমের নাম আসেনি। সুতরাং হাসনাত করিমের দেয়া ব্যাখ্যার চাইতেও অন্যান্য যারা প্রত্যক্ষদর্শী ছিল তাদের জবানবন্দির ওপর ডিপেন্ট করেছি এবং চার্জশিটে আদালতকে ব্যাখ্যা করেছি।

হামলার পর সেদিনের প্রকাশিত একটি ছবিতে জঙ্গিদের হাসনাত করিমের আচরণ স্বাভাবিক মনে হয়েছিল। এ ছবি বিশ্লেষণ করে কি পাওয়া গেল? এ প্রশ্নের জবাবে মনিরুল ইসলাম বলেন, সেই ছবিগুলো আমরা বিশ্লেষণ করেছি। সেই বিশ্লেষণের ফলাফলও আদালতে ব্যাখ্যা করেছি।