বিইউবিটির ছাত্র মাসুদের পরিবারকে ক্ষতিপূরণে রুল

সড়ক দুর্ঘটনায় মারা যাওয়া বেসরকারি বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস অ্যান্ড টেকনোলজি (বিইউবিটি)’র ছাত্র সৈয়দ মো. মাসুদ রানার পরিবারকে যথাযথ ক্ষতিপূরণ কেন দেয়া হবে না তা জানতে চেয়ে রুল জারি করেছেন হাইকোর্ট।

আগামী চার সপ্তাহের মধ্যে স্বরাষ্ট্র সচিব, সড়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি), ঢাকা মহানগরের পুলিশ কমিশনার, বাংলাদেশ রোড ট্রান্সপোর্ট অথরিটি (বিআরটিএ) ও দিশারী পরিবহনের মালিককে রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

এ সংক্রান্ত এক রিট আবেদনের শুনানি নিয়ে সোমবার হাইকোর্টের বিচারপতি জেবিএম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এই আদেশ দেন। আদালতে আজ রিট আবেদনের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার অনিক আর হক। সঙ্গে ছিলেন ব্যারিস্টার এ এইচ ইমাম হাসান।

৩ জুলাই দৈনিক ইত্তেফাকে ‘এবার পুলিশ বক্সের সামনে বাস চাপায় ছাত্র নিহত’ শীর্ষক প্রকাশিত প্রতিবেদন সংযুক্ত করে এই রিট করেন মাসুদ রানার বাবা সৈয়দ মো. জাহাঙ্গীর। ওই রিটের শুনানিতে আদালত রুল জারি করেন।

পত্রিকায় প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, এবার পুলিশ বক্সের সামনে বাস চাপায় সৈয়দ মাসুদ রানা (২২) নামে বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় বিইউবিটির এক শিক্ষার্থী নিহত হয়েছেন। দুর্ঘটনার পর থেকে মিরপুর ১ নম্বর বাস স্ট্যান্ড, চিড়িয়াখানা রোড ও সনি সিনেমা মোড়ে সড়ক অবরোধ, ভাঙচুর, মিছিল আর পুলিশের সঙ্গে ধাওয়া-পাল্টা ধাওয়ায় রণক্ষেত্রে পরিণত হয়।

নিহত সৈয়দ মাসুদ রানা বিশ্ববিদ্যালয়ের হিসাব বিজ্ঞান বিভাগের শেষ বর্ষের ছাত্র। দারুস সালাম থানাধীন ১২ নম্বর রোডের ৬/২ নম্বর দক্ষিণ বিশিল এলাকার সৈয়দ মো. জাহাঙ্গীরের ছেলে তিনি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মিরপুর এক নম্বর ঈদগাহ ময়দান পুলিশ বক্সের সামনে দিশারী পরিবহনের একটি বাস রিকশা অরোহী বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস অ্যান্ড টেকনোলজির (বিইউবিটি) শিক্ষার্থী সৈয়দ মাসুদ রানাকে চাপা দেয়। তাকে জাতীয় অর্থপেডিক্স পুনর্বাসন প্রতিষ্ঠানে (পঙ্গু হাসপাতাল) নেয়া হলে চিকিৎসকরা মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় রিকশা চালকও আহত হন।