বঙ্গবন্ধু কর্নার হচ্ছে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে

দেশের সব স্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু কর্নার স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন ও আদর্শ শিক্ষার্থীদের জানানোর জন্যই এ উদ্যোগ নিয়েছে মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ।

এ বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (বেসরকারি মাধ্যমিক) জাবেদ আহমেদ বলেন, ‘প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে শুরু করে উচ্চশিক্ষা প্রতিষ্ঠানসহ সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের গ্রন্থাগারে বঙ্গবন্ধু কর্নার স্থাপন করা হবে। এসব কর্নারে বঙ্গবন্ধুর জীবন নিয়ে বিভিন্ন প্রকাশনা, গুরুত্বপূর্ণ ছবিসহ যা কিছু সংগ্রহ করা সম্ভব, তা রাখতে বলা হবে। ওই কর্নারে আর কী কী রাখা যায় তা নিয়ে চূড়্ন্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে বৈঠক করে।’

এ বিষয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের যুগ্মসচিব (বেসরকারি মাধ্যমিক) সালমা জাহান বলেন, ‘শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলোর গ্রন্থাগার বা প্রতিষ্ঠানে আলাদা করে বঙ্গবন্ধু কর্নার করা হবে। কর্নারে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক গুরুত্বপূর্ণ ছবিসহ মুক্তিযুদ্ধ ও বঙ্গবন্ধ সম্পর্কে শিক্ষার্থীদের অবহিত করার লক্ষ্যে যা করা সম্ভব. তা করা হবে।’

মন্ত্রণালয়ের সূত্রে জানা গেছে, রাজশাহী-৫ সংরক্ষিত মহিলা আসনের সংসদ সদস্য আখতার জাহান সারাদেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু কর্নার স্থাপনের প্রস্তাব দেন। মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস ও জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন ও আদর্শ শিক্ষার্থীদের জানাতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে এই প্রস্তাব পাঠান গত বছর। তার এই প্রস্তাবের পর মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ চিঠি দিয়ে এ বিষয়ে মতামত চায় ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যানের কাছে। গত বছর ৮ অক্টোবর যুগ্মসচিব সালমা জাহানের ওই চিঠির পর ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু কর্নার স্থাপনের বিষয়ে মত দেন।

ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের পাঠানো প্রতিবেদনের পর সম্প্রতি দেশের সব স্তরের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বঙ্গবন্ধু কর্নার স্থাপনের উদ্যোগ নেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। আগামী ২৪ জুলাই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে বৈঠক আহ্বান করা হয়। মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের অতিরিক্ত সচিব (বেসরকারি মাধ্যমিক) জাবেদ আহমেদের সভাপতিত্বে এ বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে।

অতিরিক্ত সচিব জাবেদ আহমেদ আরও বলেন, ‘বঙ্গবন্ধু কর্নারে কী কী থাকবে, তা বৈঠকের মাধ্যমে বেরিয়ে আসবে। বঙ্গবন্ধুর জীবনী, বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে প্রকাশিত গুরুত্বপূর্ণ বইসহ ঐতিহাসিক বিষয়াদী যুক্ত হতে পারে।’