দেশের উত্তাঞ্চরের জন্য ভয়াবহ দুঃসংবাদ, ১ মাস বিদ্যুৎহীন থাকবে চার জেলা!

বিশেষ প্রতিবেদক: বড়পুকুরিয়া বিদ্যুৎকেন্দ্র বন্ধের কারণে উত্তরের চার জেলায় (রংপুর, ঠাকুরগাঁও, নীলফামারী, কুড়িগ্রাম) এক মাস বিদ্যুৎ বিভ্রাট হবে বলে জানিয়েছেন বিদ্যুৎ উন্নয়ন বোর্ডের (পিডিবি) চেয়ারম্যান খালেদ মাহমুদ।

সোমবার (২৩ জুলাই) রাজধানীর বিদ্যুৎ ভবনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে এ মন্তব্য করেন তিনি।

পিডিবি চেয়ারম্যান জানান, এ সংকট সমাধানে সিরাজগঞ্জ বিদ্যুৎকেন্দ্র থেকে উত্তরাঞ্চলে বিদ্যুৎ সরবরাহ করে পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার চেষ্টা চলছে।

‘প্রধানমন্ত্রী বিদ্যুৎ বিভাগের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকে বলেছেন- জনভোগান্তি কমাতে হবে। উদ্ভূত এই পরিস্থিতি সামাল দিয়ে মানুষের কষ্ট লাঘব করতে হবে।’

জ্বালানি সংকটে পড়ে দিনাজপুর জেলার পার্বতীপুরে দেশের একমাত্র কয়লাভিত্তিক বড়পুকুরিয়া ৫২৫ মেগাওয়াট তাপ বিদ্যুৎকেন্দ্রটি রোববার (২২ জুলাই) রাত ১০টা ২০ মিনিটে পুরোপুরি বন্ধ হয়ে গেছে। কবে নাগাদ পুনরায় এটি চালু হবে তা বলতে পারেননি বিদ্যুৎ কেন্দ্রটির ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ।

এদিকে, বড়পুকুরিয়া খনির কোল ইয়ার্ড থেকে প্রায় ১ লাখ ৪২ হাজার টন কয়লা উধাও হয়ে যাওয়ার ঘটনাটি খনি কর্তৃপক্ষ ‘সিস্টেম লস’ হিসেবে চালিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বড়পুকুরিয়া খনির উপর নির্ভর করে খনির পার্শ্বে কয়লাভিত্তিক ৫২৫ মেগাওয়াট উৎপাদন ক্ষমতার তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রটি গড়ে তোলা হয়। বিদ্যুৎ কেন্দ্রটিতে ২৭৫ মেগাওয়াট ক্ষমতার একটি ও ১২৫ মেগাওয়াট করে দু’টি ইউনিট রয়েছে।

কেন্দ্রটি পূর্ণ উৎপাদনে থাকলে প্রতিদিন গড়ে ৫ হাজার ২০০ মেট্রিক টন কয়লার প্রয়োজন হয়। ১২৫ মেগাওয়াট উৎপাদন ক্ষমতার ১নং ইউনিটটি (জেনারেল ওভারহোলিং) মেরামতের জন্য কয়েকমাস ধরে বন্ধ রয়েছে। আর ২নং ইউনিটটি কয়লা সংকটের কারণে গত ২৯ জুন বন্ধ করে দেওয়া হয়। কয়লা সংকটের কারণে ২৭৫ মেগাওয়াট ক্ষমতার ৩ নং ইউনিটটি কয়েকদিন ধরে খুড়িয়ে খুড়িয়ে চলে, অবশেষে গত রাতে সেটিও বন্ধ হয়ে গেল।