রাজধানীতে চালের দাম কমছে না, বেড়েছে ডিমের দাম

স্টাফ রিপোর্টার : রাজধানীতে চালের দাম কমছে না। আগের বাড়তি দামে চাল বিক্রয় হচ্ছে। তবে এবার বেড়েছে ডিমের দাম। আবার এলাকাভেদে দামের ভিন্নতাও লক্ষ্য করা গেছে। গতকাল শুক্রবার রাজধানীর খুচরা বাজার অনুসারে মিরপুর এলাকায় মুরগীর ডিম হালি প্রতি বিক্রি হচ্ছে ৩৪ থেকে ৩৫ টাকা, কারওয়ান বাজার এলাকায় ৩০ থেকে ৩২ টাকা আবার সেগুনবাগিচা এলাকায় মুরগীর ডিমের হালি ৩৩ বা কোথাও ৩৫ টাকা বিক্রয় হচ্ছে। গত জুন মাসের শুরুর দিকে রাজধানীর এসব বাজারে ডিমের হালি ছিল ২২ থেকে ২৫ টাকা। কিন্তু গত ২০ জুনের পর থেকেই বাড়তে শুরু করে ডিমের দাম। এর আগে ডিমের দাম কম হওয়ায় বিভিন্ন খামারিরা ডিম ভেঙে প্রতিবাদ জানাতে দেখা গেছে।

ডিমের দাম কেন বৃদ্ধি পেয়েছে এর কোনো সুনির্দিষ্ট কারণ বা ব্যাখ্যা দিতে পারেনি খুচরা ও পাইকারি ডিম বিক্রেতারা। কারওয়ান বাজারের পাইকারি বিক্রেতা রাশেদুল ইসলাম জানান, ডিমের দাম কেন বাড়ছে তা জানি না। ডিম বেশি আসে গাজীপুর আর সাভার থেকে। দাম বৃদ্ধির ঘটনা সেখানেই ঘটছে। মূল্য বৃদ্ধির বক্তব্য নিয়ে পাইকারি ও খুচরা বিক্রেতাদের মধ্যে চলছে একে অপরকে দোষ দেওয়ার কাঁদা ছোঁড়াছুড়ি। এদিকে চলের দাম কমছে না। গত এক বছরে দেশে চালের আমদানি হয়েছে রেকর্ড পরিমাণ। আর ভরা মৌসুম চাহিদার তুলনায় বাজারে সরবরাহ বেশি। কৃষকরা চালের ন্যায্য মূল্য পাচ্ছে না। অথচ চালের দাম ঊর্ধ্বমুখী। মূলত সিন্ডিকেটের দৌড়াত্বেই বাড়ছে চালের দাম। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, চালের বাজারের সিন্ডিকেট কৃত্রিমভাবে দাম বৃদ্ধি করেছে। গত ৭ জুন প্রস্তাবিত বাজেট ঘোষণার পর পরই সক্রিয় হয়ে ওঠে অসাধু সিন্ডিকেট। ঈদের পরপরই সব ধরনের মোটা চালের দাম কেজিতে ২-৩ টাকা পর্যন্ত বাড়িয়ে দেয়। এদিকে পাইকারি বাজারের চাল বিক্রেতারা বলছেন, বাজেট ঘোষণার আগে থেকেই বড় ব্যবসায়ী ও চালকল মালিকরা সরবরাহ কমিয়ে দিয়ে তা ধরে রেখেছেন। এ কৃত্রিম সঙ্কটে চালের দাম কিছুটা বেড়েছে। গতকাল রাজধানীর মিরপুর, কারওয়ান বাজার, ফার্মগেট ও হাতিরপুলসহ কয়েকটি বাজার ঘুরে এ প্রবণতা দেখা গেছে। মোটা চাল মানভেদে ৪০ থেকে ৪৮ টাকা ও মিনিকেট চাল ৫৮ থেকে ৬২ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

মিরপুর বাজারের চাল ব্যবসায়ী সিরাজুল ইসলাম বলেন, পাইকারি বাজারে চালের দাম বেশি। আর এ কারণে খুচরা বাজারেও চালের দাম বেড়ে গেছে। তবে সবজির দাম কিছুটা কমেছে কাঁচা মরিচ বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকা থেকে ১২০ কেজি দরে। আর এক পোয়া (২৫০ গ্রাম) হিসাবে বিক্রি হচ্ছে ২৫-৩০ টাকায়। গত সপ্তাহেও কাঁচা মরিচ বিক্রি হয় ১৪০-১৫০ টাকা কেজি।

কাঁচা মরিচের দাম কমার বিষয়ে মিরপুরে ব্যবসায়ী হায়দার আলী বলেন, বাজারে সরবরাহ কিছুটা বেড়েছে। সে কারনে কমেছে।

পেঁয়াজের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। অধিকাংশ সবজির দাম কমেছে। গত সপ্তাহে ৩৫-৪০ টাকা কেজি বিক্রি হওয়া চিচিঙ্গার দাম কমে ২৫-৩০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে। ঝিঙা ও ধুন্দলের কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৫-৩০ টাকা কেজি, আর পটল ২৫-৩০ টাকা। যা আগের সপ্তাহে ছিল ৩৪-৪০ টাকা। গত সপ্তাহে ৪০ টাকার বেশি দামে বিক্রি হওয়া ঢেঁড়স ও করলার দাম কমে হয়েছে কেজি ২৫-৩০ টাকা।

দাম কমার তালিকায় থাকা পেঁপের কেজি হয়েছে ২০-২৫ টাকা, যা গত সপ্তাহে ছিল ৩০ টাকা। আর কাকরলের দাম কমে দাঁড়িয়েছে ৩০-৩৫ টাকা, যা আগের সপ্তাহে ছিল ৩৫-৪০ টাকা কেজি। বরবটি বিক্রি হচ্ছে ২৫-৩০ টাকা কেজি, যা আগের সপ্তাহে ছিল ৪০-৫০ টাকা। সবজির দাম কমলেও স্থিতিশীল রয়েছে শাকের দাম। লাল শাক, সবুজ ডাটা শাক, পাট শাক, কলমি শাক আগের সপ্তাহের মতো ১০-১৫ টাকা আটি বিক্রি হচ্ছে। পুইশাক ও লাউ শাকের আটি বিক্রি হচ্ছে ২০-২৫ টাকা।