গাজীপুরে স্ত্রী-মেয়েকে গলা কেটে ‘হত্যার পর আত্মহত্যা’

গাজীপুর প্রতিনিধি : গাজীপুরের এক বাড়ি থেকে তিনজনের লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ; যাদের মধ্যে একজনকে ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া গেছে; আর তার স্ত্রী ও মেয়েকে হত্যা করা হয়েছে গলা কেটে। নিহতরা হলেন সিটি করপোরেশনের হায়দারাবাদ এলাকার আবুল হাশেমের ছেলে কামাল হোসেন (৪০), কামালের স্ত্রী নাজমা বেগম (৩৫) ও তাদের মেয়ে সানজিদা কামাল রিমি (১৮)।

পুলিশ ধারণা করছে নাজমা ও রিমিকে হত্যার পর কামাল আত্মহত্যা করেছেন। জয়দেবপুর থানার এসআই শফিকুল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার বেলা ৩টার দিকে পুলিশ গিয়ে লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন আহমদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল মর্গে পাঠায়।

ঘটনাস্থল থেকে একটি রক্তমাখা চাকু উদ্ধার করা হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, “মা-মেয়ের গলা ও পেট কাটা দেখা গেছে। তাদের শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। আর কামলকে পাওয়া গেছে বারান্দায় ঝুলন্ত অবস্থায়।” নিহত কামাল জমি কেনাবেচা করতেন বলে স্বজনরা জানিয়েছেন। তার স্ত্রী নাজমা ছিলেন গৃহিণী। তাদের মেয়ে রিমি উত্তরায় বাংলাদেশ মেডিকেল কলেজের প্রথম বর্ষের ছাত্রী ছিলেন।

কামালের বড় ভাবি মাহমুদা সাংবাদিকদের বলেন, “সকাল সাড়ে ১০টার দিকে কামালের বাড়ি গিয়ে দেখি বারান্দায় তার মরদেহ ঝুলছে। এ সময় ডাকাডাকি করতে গিয়ে নাজমা ও রিমির রক্তাক্ত মরদেহ ঘরের মেঝেতে পড়ে থাকতে দেখি।” এ সম্পর্কে জেলার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ হারুন অর রশীদ বলেন, “প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে কামাল তার মেয়ে ও স্ত্রীকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যার পর নিজে আত্মহত্যা করেছেন।” তবে এর সঙ্গে অন্য কিছু আছে কিনা তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে বলে তিনি জানান।