মানসিক অসুস্থতার মিথ্যা সনদ দিলেই জেল-জরিমানা

ডেস্ক রিপোর্ট: কোনো চিকিৎসক মানসিক অসুস্থতা নিয়ে উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে মিথ্যা সনদ দিলে জেল ও জরিমানার বিধান রেখে ‘মানসিক স্বাস্থ্য আইন, ২০১৮’ এর খসড়া অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। এ সংক্রান্ত অপরাধে জড়িত (মানসিক স্বাস্থ্যসেবায় পেশাজীবী হিসেবে নিয়োজিত) ব্যক্তিকে সর্বোচ্চ তিন লাখ টাকা অর্থদণ্ড বা এক বছরের সশ্রম কারাদণ্ড বা উভয়দণ্ডে দণ্ডিত করা হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সোমবার তার কার্যালয়ে মন্ত্রিসভার বৈঠকে ‘মানসিক স্বাস্থ্য আইন-২০১৮’ এর খসড়ার চূড়ান্ত অনুমোদন দেওয়া হয়। পরে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব (সমন্বয় ও সংস্কার) এন এম জিয়াউল আলম সচিবালয়ে সাংবাদিকদের বলেন, ১৯১২ সালের একটি আইনকে হালনাগাদ করে নতুনভাবে বাংলায় রূপান্তার করে এই আইন করা হচ্ছে। বর্তমান সময়ের প্রেক্ষাপটে মানসিক স্বাস্থ্য সমস্যা সংক্রান্ত নাগরিকদের মর্যাদা সুরক্ষা, স্বাস্থ্যসেবা দেওয়া, সম্পত্তির অধিকার ও নিশ্চিতকরণ, পুনর্বাসন ও সার্বিক কল্যাণ নিশ্চিতে একটি যুগোপযোগি আইন প্রণয়নের অংশ হিসেবে এই আইন করা হচ্ছে।

প্রস্তাবিত আইনে ৩১টি ধারা রয়েছে জানিয়ে জিয়াউল বলেন, প্রস্তাবিত আইনে মানসিক স্বাস্থ্য বিষয়ক সকল কার্যক্রম পরিচালনা, উন্নয়ন, সম্প্রসারণ, নিয়ন্ত্রণ ও সমন্বয়ের দায়িত্ব সরকারের উপর ন্যস্ত করা হয়েছে। মানসিক অসুস্থতায় আক্রান্ত ব্যক্তির দীর্ঘমেয়াদী চিকিৎসা প্রদান এবং এ সংক্রান্ত সংক্ষুব্ধতায় প্রতিকারের লক্ষ্যে মানসিক স্বাস্থ্য রিভিউ মনিটরিং কমিটি গঠনের সুপারিশ করা হয়েছে। সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে মানসিক স্বাস্থ্য চিকিৎসা বিষয়ক হাসপাতাল স্থাপন, পরিচালনা ও মানসম্মত সেবা দেওয়ার বিষয়েও খসড়া আইনে প্রস্তাব রাখা হয়েছে বলে জানান মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব জিয়াউল।

এছাড়া মানসিক অসুস্থতায় আক্রান্ত ব্যক্তির অভিভাবক, নিয়োগ ও সম্পত্তি ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত বিষয়াদি সম্পর্কে আইনে উল্লেখ করা হয়েছে জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সচিব বলেন, ‘অভিভাবকহীন ও আত্মীয় পরিচয়হীন মানসিক অসুস্থতায় আক্রান্ত ব্যক্তির চিকিৎসা ও পুনর্বাসন-সংক্রান্ত বিষয়াদি আইনে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। কোনো ব্যক্তির মানসিক অবস্থার বিচারিক অনুসন্ধানের প্রক্রিয়া-সংক্রান্ত বিধানও খসড়া আইনে রয়েছে।’

জিয়াউল আলম বলেন, ‘মানসিক স্বাস্থ্যসেবায় নিয়োজিত কোনও পেশাজীবী উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে মিথ্যা সনদ দিলে সর্বোচ্চ তিন লাখ টাকা জরিমানা বা এক বছর কারাদণ্ড অথবা উভয়দণ্ডে দণ্ডিত হবেন। আর মানসিক ভারসাম্যহীন ব্যক্তির অভিভাবকরা সম্পত্তি ভাগাভাগিতে কারচুপি ও চিকিৎসায় অবহেলা করলে পাঁচ লাখ টাকা জরিমানা বা তিন বছরের জেল অথবা উভয়দণ্ডে দণ্ডিত হবেন।’