খালেদা জিয়া হাঁটতে পারছেন না: ফখরুল

স্টাফ রিপোর্টার ; বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার হাঁটু ও শরীরের ব্যথা অত্যন্ত বেড়ে গেছে বলে দাবি করেছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, এ কারণে তিনি হাঁটতে পারছেন না। শনিবার (১৪ জুলাই) খালেদা জিয়ার পরিবারের সদস্যরা তার সঙ্গে দেখা করতে কারাগারে গিয়েছিলেন। কিন্তু হাঁটতে না পারার কারণে তিনি তাদের সঙ্গে দেখা করতে পারেননি।’ রবিবার (১৫ জুলাই) নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন। মির্জা ফখরুল বলেন, ‘ পরিবারের সদস্যরা কারাগারে দেখা করতে গেলে খালেদা জিয়াকে যে ভবনে রাখা হয়েছে সেই ভবনের নিচে তাদের বসানো হয়েছিল এবং বলা হয়েছিল তিনি আসবেন। কিন্তু খালেদা জিয়া তাদের সঙ্গে দেখা করতে আসেননি। কারণ, গত কয়েকদিন ধরে তিনি জ্বরে আক্রান্ত। তার হাঁটু ও শরীরের ব্যথা অত্যন্ত বেড়ে গেছে। আজ প্রায় ১৩ দিন তার সঙ্গে পরিবারসহ কারও দেখা হচ্ছে না।’

বিএনপি চেয়ারপারসন বলেন, ‘খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য আমরা অনেকগুলো পদক্ষেপ নিয়েছিলাম। আইজি প্রিজন ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে চিঠি দিয়েছিলাম। বলেছিলাম, তার শরীর অত্যন্ত খারাপ। তাকে কারাগার থেকে মুক্তি দিয়ে চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হোক। কিন্তু সরকার কোনও পদক্ষেপ নিচ্ছে না।’ খালেদা জিয়াকে রাজনীতি থেকে দূরে রাখতে পরিকল্পনা করা হচ্ছে অভিযোগ করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘চিকিৎসা না দিয়ে তার শারীরিক অসুস্থতা এমন পর্যায়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে, যেন তিনি সেখান থেকে আর ফিরে না আসেন।

খালেদা জিয়ার জীবন যদি হুমকির মুখে পড়ে তাহলে এর সমস্ত দায়-দায়িত্ব শেখ হাসিনা ও তার সরকারকে বহন করতে হবে। কোন ধরনের প্রতিহিংসা হলে একজন ৭৩ বছর বয়সী মানুষকে তার চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত করা হয়? পৃথিবীর কোনও সভ্য দেশে এই ধরনের ব্যবস্থা চলতে পারে না।’ কারাবিধি অনুযায়ী খালেদা জিয়াকে তার সেলের মধ্যে দেখা করার অনুমিত দেওয়ার বিধান আছে উল্লেখ করে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘কিন্তু সরকার এগুলোকে কোনও গুরুত্ব দিচ্ছে না। তারা মনে করছেন এখন আমাদের শুভদিন চলছে। কোথাও কোনও প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হচ্ছে না।

সুতরাং যা খুশি তাই করতে পারি। আওয়ামী লীগ এর আগে ’৭৫ সালে একই রকম অবস্থা সৃষ্টি করেছিল। তখন তাদের শুভদিন ছিল। তবে সেই শুভদিন বেশিদিন টিকতে পারেনি। যারা স্বৈরাচারী কায়দায় দেশ পরিচালনা করে তারা কখনও শুভদিনগুলো শেষ পর্যন্ত ভোগ করতে পারে না।’ খালেদা জিয়ার মুক্তি ও চিকিৎসা না দেওয়ার প্রতিবাদে আগামী ২০ জুলাই নয়াপল্টনে দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে বিক্ষোভ সমাবেশের কর্মসূচি ঘোষণা দেন মির্জা ফখরুল। তিনি বলেন, ‘আশা করি কর্তৃপক্ষ যথাযথ ব্যবস্থা নেবে।’