৩০ শতাংশ মুক্তিযোদ্ধা কোটা বহাল থাকবে : মোজাম্মেল হক

মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের জন্য সরকারি চাকরিতে ৩০ শতাংশ কোটা বহাল থাকবে বলে জানিয়েছেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী গতকাল এ ঘোষণা দিয়েছেন। আমিও এ কথার পুনরাবৃত্তি করছি এবং মুক্তিযোদ্ধাদের পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ জানাচ্ছি।

শনিবার রাজধানীর গুলিস্তান নাট্যমঞ্চে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন পরিষদ আয়োজিত অনুষ্ঠানে মুক্তিযোদ্ধা প্রতিনিধি সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

মন্ত্রী বলেন, যারা মুক্তিযুদ্ধের বিরোধিতা করেছিল সেই জামায়াতের এ দেশে রাজনীতি করার বা সুযোগ-সুবিধা ভোগ করার কোনো অধিকার নেই। এদেশে জামায়াতের রাজনীতি নিষিদ্ধ করতে হবে। তাদের সব ধরনের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করতে হবে। তাদের সন্তানদের সরকারি চাকরিতে প্রবেশ নিষিদ্ধ ঘোষণা করতে হবে।

তিনি বলেন, যারা ধর্মের নামে জ্বালাও পোড়াও করেছে, মানুষ খুন করেছে তাদের বিচার নিশ্চিত করতে হবে। যদি ৪০ বছর পর এসে প্রধানমন্ত্রী যুদ্ধাপরাধীদের বিচার করতে পারেন তাহলে যারা জ্বালাও পোড়াও করেছে তাদের বিচারও হতে পারবে, হওয়া সম্ভব।

মুক্তিযোদ্ধা ও মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রণালয়কে সরকারের দেওয়া নানা বরাদ্দ ও সুযোগ-সুবিধার বর্ণনা দিয়ে মোজাম্মেল হক বলেন, প্রধানমন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি সহনশীল। তিনি মুক্তিযোদ্ধাদের দাবি দাওয়া সব সময় গুরুত্ব দেন। তাই সম্প্রতি দেশের সব ঐতিহাসিক স্থান রক্ষার জন্য ২০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছেন।

সোহরাওয়ার্দী উদ্যানেকে বিশেষভাবে সংরক্ষণ ও স্থাপত্য নির্মাণের জন্য বরাদ্দ দিয়েছেন ৩০০ কোটি টাকা। অসুস্থ ও অসহায় মুক্তিযোদ্ধাদের চিকিৎসার জন্য বরাদ্দ করেছেন ২২ কোটি ৭৩ লাখ টাকা। বধ্যভূমির জন্য বরাদ্দ দিয়েছেন ৪ কোটি ৫৩ লাখ ২৭ হাজার টাকা। এ ছাড়া দেশের প্রথম রাজধানী মুজিবনগরকে সংরক্ষণের জন্য বরাদ্দ দিয়েছেন ৫৯ কোটি টাকা। প্রতিনিধি সভায় সভাপতিত্ব করেন নৌ পরিবহনমন্ত্রী শাজহান খান