পাখির ডিম ভাঙ্গায় শিশুকে দশ দিন বাড়ির বাইরে রাখার নির্দেশ পঞ্চায়েতের, গ্রেফতার ১০

ফুলকি অনলাইন: ডিমগুলো দেখে দুষ্টুবুদ্ধি মাথায় খেলেছিল পাঁচ বছরের মেয়েটির। খেলতে গিয়ে একটা ডিম ভেঙে ফেলেছিল সে। আর ওই ‘অপরাধে’ই খাপ পঞ্চায়েতের বিধান, দশ দিন ঘরের বাইরে থাকতে হবে তাকে। গত বুধবার ঘটনাটি ঘটেছে রাজস্থানের বুঁদি জেলায়।

বৃহস্পতিবার বিষয়টি সামনে আসার পরই নড়চড়ে বসে স্থানীয় পুলিশ ও প্রশাসন। ঘটনাস্থলে হাজির হন বুঁদির হিন্দোলি থানার পুলিশ। উদ্ধার করা হয় শিশুটিকে।পুলিশ ইন্সপেক্টর লক্ষ্মণ সিংহ জানিয়েছেন, এই ঘটনার সঙ্গে জড়িত অভিযোগে দশ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাঁদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।

ঠিক কী ঘটেছিল?

পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, গত ২ জুলাই ঘটনা ঘটে। প্রথম শ্রেণির ছাত্রীটি ঘরের মধ্যে তিতিহারি পাখির ডিম দেখতে পায়। কৌতূহলের বশে সেটি খেলতে গিয়ে ফাটিয়ে ফেলে ডিমটি। আর এই ঘটনাটি জানাজানি হতেই ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন খাপ পঞ্চায়েতের মাতব্বররা। বিষয়টি গুরুতর অপরাধ বলে বিবেচনা করা হয়।

বুঁদি এলাকায় বাস করেন মূলত রেগার সম্প্রদায়ের মানুষজন। তফশিলি জাতিভূক্ত এই মানুষগুলোর কাছে তিতিহারি পাখির আলাদা গুরুত্ব আছে। এই সম্প্রদায়ের মানুষের বিশ্বাস, তিতিহারি পাখি বৃষ্টির বার্তা বহন করে আনে। স্বাভাবিক ভাবেই সেই পাখির ডিম ফাটিয়ে ফেলার ঘটনায় রুষ্ট হয় সমাজের মাথারা।

নির্দেশ মতো, খাপ পঞ্চায়েতের সভা ডাকা হয়। সেখানে উপস্থিত থাকতে নির্দেশ দেওয়া হয় শিশুটি ও তার পরিবারকে। সেখানেই শিশুটিকে দশ দিন বাড়ির বাইরে থাকার শাস্তি দেওয়া হয়।

ঘটনাটি জানাজানি হতেই এর তীব্র নিন্দা করেছে রাজস্থানের মানবধিকার কমিশন। কমিশনের চেয়ারপ্যারসন মানান চর্তুবেদী জানিয়েছেন, ‘বিষয়টি খুবই নিন্দনীয়। ঘটনায় জড়িতদের কড়া শাস্তি হওয়া উচিত।’

এসময় শিশুটি এবং তার পরিবারের নিরাপত্তার দিকটি নিশ্চিত করার দায়িত্ব পুলিশ ও প্রশাসনের বলেও মন্তব্য করেছেন চর্তুবেদী।