টেকনাফে ইয়াবা ব্যবসায়ীসহ দুজনের মৃতদেহ উদ্ধার

কক্সবাজার সংবাদদাতা : কক্সবাজারের টেকনাফে ইয়াবা ব্যবসায়ীসহ দুজনের মৃতদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। এরমধ্যে একজন রোহিঙ্গা। শুক্রবার (১৩ জুলাই) দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা ইউনিয়নের লেদা পুরাতন রোহিঙ্গা শিবিরের পাশে পাহাড়ের ধার থেকে লাশ দুটি উদ্ধার করা হয় বলে জানিয়েছে পুলিশ।

নিহতরা হলেন– টেকনাফের শীর্ষ ইয়াবা ব্যবসায়ী নুরুল হুদা মেম্বারের ভাই শামসুল হদা (৩৩)। অপরজন হলেন লেদা রোহিঙ্গা শিবিরের বি-ব্লকের বাসিন্দা ও শামসুল হুদার সসহযোগী রোহিঙ্গা যুবক রহিম উল্লাহ (২২)। নিহত শামসুল হুদাও ইয়াবা ব্যবসায়ী ছিলেন ।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, শুক্রবার দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে লেদা রোহিঙ্গা শিবিরের পাশের পাহাড়িছড়ায় দুটি লাশ দেখতে পান স্থানীয় কাঠুরিয়ারা। পরে টেকনাফ থানা পুলিশকে খবর দেওয়া হয়। পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে লাশ দুটি উদ্ধার করে।

একজন কাঠুরিয়ার বরাদ দিয়ে স্থানীয় মোহাম্মদ শাহীন জানান, হ্নীলার ৮ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য নুরুল হুদার ভাই শামসুল হুদার লাশ গলাকাটা অবস্থায় ছিল। আর রোহিঙ্গা যুবক রহিম উল্লাহর (২২) লাশ ছিল বস্তাবন্দি । রোহিঙ্গা যুবক রহিম উল্লাহকে নিহত ইয়াবা ব্যবসায়ী শামসুল হুদার অস্থায়ী দেহরক্ষী হিসেবে জানতো স্থানীয়রা।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে কক্সবাজার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আফরুজুল হক টুটুল বলেন, ‘স্থানীয়দের কাছ থেকে খবর পেয়ে লাশ দুটি উদ্ধার করা হয়। ধারণা করা হচ্ছে– ইয়াবা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে এই ঘটনা ঘটেছে। পুলিশ প্রকৃত ঘটনা উৎঘাটনে তদন্ত চালাচ্ছে। লাশ দুটি ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে পাঠানোর জন্য প্রক্রিয়া চলছে।’

লেদা রোহিঙ্গা শিবিরের ইনচার্জ শাহজাহান মিয়া বলেন, ‘পাহাড়ে দুটি গলাকাটা লাশের খবর পাওয়া গেছে। লাশ দুটি উদ্ধারের প্রস্তুতি চলছে। বেশ কয়েকদিন ধরে রোহিঙ্গাদের একটি গ্রুপ ‘ডাকাত’ আব্দুল হাকিমের সঙ্গে থেকে মাদক পাচারসহ বিভ্ন্ন অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড চালিয়ে যাচ্ছিল। তাদের অভ্যন্তরীণ কোন্দলে হত্যাকাণ্ডের এই ঘটনা ঘটে থাকতে পারে।’