অবশেষে নিষিদ্ধ হলেন চান্দিমাল ও হাথুরুসিংহে

ফুলকি ডেস্ক: সিরিজ শুরুর আগের দিন শুনানি হয়েছে। প্রথম টেস্ট শুরুর ঘণ্টা দশেক আগে আইসিসি টুইট করে জানিয়েছে, যথাসময়ে রায় দেবেন জুডিশিয়াল কমিশনার। তবে নিজেদের সম্ভাব্য ভাগ্য মেনে নিয়েছেন দিনেশ চান্দিমাল, চন্দিকা হাথুরুসিংহে ও অসাঙ্কা গুরুসিনহা। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে নিষিদ্ধ থাকছেন তিন শ্রীলঙ্কান।

বৃহস্পতিবার শুরু হয়ে যাওয়া গল টেস্টে শ্রীলঙ্কাকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন সুরাঙ্গা লাকমল। খেলতে না পারলেও নিয়মিত অধিনায়ক চান্দিমাল থাকতে পারবেন ড্রেসিং রুমে। তবে কোচ হাথুরুসিংহে ও ম্যানেজার গুরুসিনহা থাকতে পারবেন না ড্রেসিং রুমে।

গত মাসে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে সেন্ট লুসিয়া টেস্টে ক্রিকেটের চেতনা ভঙ্গের অভিযোগ আনা হয় এই তিন শ্রীলঙ্কানের বিরুদ্ধে। তিনজনই পরে মেনে নেন নিজেদের দায়। তবে শাস্তি যাতে কম হয়, সেটির আবেদন করে লঙ্কান বোর্ড।

বুধবার শ্রীলঙ্কান সময় সন্ধ্যা ৬টার দিকে শুরু হয় শুনানি। চলে ৫ ঘণ্টার বেশি সময় ধরে। শুনানি শেষে তখন রায় জানাননি জুডিশিয়াল কমিশনার। রায় আসতে পারে টেস্ট চলার সময়ও। চান্দিমালরা তাই ন্যূনতম শাস্তিটুকু আগেই মেনে নিয়ে থাকছেন দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজের বাইরে।

আইসিসির আচরণ বিধির এই ধারা ভঙ্গের ন্যূনতম শাস্তি চারটি সাসপেনশন পয়েন্ট, যেটি দুই টেস্টের নিষেধাজ্ঞার সমান। আপাতত চান্দিমালদের আশা, ন্যূনতম শাস্তিতেই যেন পার পাওয়া যায়। যদি চারটির বেশি সাসপেনশন পয়েন্ট শাস্তি হয়, তাহলে থাকতে পারবেন না দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে ওয়ানডেতেও। প্রতিটি সাসপেনশন পয়েন্টের জন্য নিষিদ্ধ থাকতে হবে একটি করে ওয়ানডে।

সেন্ট লুসিয়া টেস্টে বল টেম্পারিংয়ের দায়ে এর মধ্যেই এক টেস্টের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়েছেন চান্দিমাল। টেম্পারিংয়ের অভিযোগ তোলার পরই টেস্টের তৃতীয় দিন সকালে শ্রীলঙ্কা দল দুই ঘণ্টা দেরিতে মাঠে নামায় চান্দিমালদের বিরুদ্ধে ক্রিকেটের চেতনা ভঙ্গের অভিযোগ এনেছিল আইসিসি।