৩৬মত বিসিএসের নিয়োগে দীর্ঘসূত্রিতা

স্টাফ রিপোর্টার : বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশের পর থেকে নিয়োগ পর্যন্ত আড়াই বছর লেগে যাচ্ছে। সব শেষ নিয়োগ পাওয়া ৩৬মত বিসিএসের প্রজ্ঞাপন হয়নি তিন বছরেও। সরকারি চাকরিতে নিয়োগ প্রক্রিয়ার এই দীর্ঘসূত্রিতা কমিয়ে আনা জরুরি বলে মনে করেন শিক্ষাবিদরা।

৩৬মত বিসিএস নিয়োগ প্রার্থীরা বলেন, আমরা ভেবেছিলাম হয়তো আমাদের সর্বোচ্চ ৪ থেকে ৫ মাস সময়ের মধ্যে হবে, কিন্তু ৯ মাসের মধ্যেও এখনো আমাদের নিয়োগ হয়নি। ৩৬ মত বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ হয় ৩১ মে ২০১৫ সালে তখন আমার বয়স ছিল ২৬ বছর আর এখন আমার বয়স ত্রিশ বছর হয়ে যাচ্ছে তাহলে আমরা কিভাবে এই সমস্যা থেকে বেরিয়ে আসবো। হিসেব অনুযায়ী হাইকোর্টের স্থগিত আদেশের কারণে ৩৪ তম ছাড়া গত ৯টি বিসিএসের মধ্যে ৩৬ মত বিসিএসের নিয়োগ প্রক্রিয়ায় সব থেকে সময় বেশি লাগছে। পিএসসি বলছে প্রচলিত আঠামোতে এর চেয়ে সময় কমানোর সুযোগ নেই। তবে সময় কমিয়ে আনতে একসঙ্গে একাধিক বিসিএসের পরিক্ষা নেওয়া হচ্ছে। আর প্রতি বছর একটি বিসিএসের চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করা হচ্ছে। বিসিএসের নিয়োগ প্রক্রিয়ার সময় কমিয়ে আনা জরুরি বলে মনে করেন শিক্ষাবিদরা।

শিক্ষাবিদ ড. সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম বলেছেন, সব দায়িত্ব যদি পিএসসির থাকতো তাহলে তারা খুব দ্রুত বেগে কাজ করতে পারতো। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় এবং পিএসসির মধ্যে আরো অনেক বেশি ঘনিষ্ট সমন্বয় থাকা উচিৎ।আমরা বহু সংখ্যক তরুণের আবেগ নিয়ে কাজ করছি। কাজেই আমরা নিয়মতান্ত্রিক উপায়ে সময়ের ভিতরে সবগুলি কাজ শেষ করতে পারি তাহলে তাদের সমর্থন পাওয়া যাবে। জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়েছে ৩৬মত বিসিএসের প্রজ্ঞাপনের বিষয়ে সারসংক্ষেপ পাঠানো হয়েছে। অনুমোদন পাওয়া মাত্রই প্রজ্ঞাপন জারি করা হবে।