ডাচ মেয়েদের উড়িয়ে দিল বাংলাদেশের মেয়েরা

 টি-২০ বিশ্বকাপের বাছাইপর্বের নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে স্বাগতিক নেদারল্যান্ডের বিপক্ষে বিশাল জয় পেয়েছে বাংলাদেশের নারী ক্রিকেটাররা।

বোলিংয়ে স্পিনের জাদু ও পরে ব্যাটিং দৃঢ়তায় সাত উইকেট ও ১২ ওভার হাতে রেখে জয় নিশ্চিত করেছে বাংলাদেশের মেয়েরা। ৩ ওভারে ৩ রান দিয়ে ৩ উইকেট নিয়ে প্লেয়ার অব দ্য ম্যাচ হয়েছেন ফাহিমা খাতুন।

রবিবার নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে উট্রেখটের কাম্পোং গ্রাউন্ডে স্বাগতিক নেদারল্যান্ডের মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ। টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন অধিনায়ক সালমা খাতুন।

বল হাতে প্রথম ওভারে আসেন বাংলাদেশের গতিতারকা জাহানারা আলম। অত্যন্ত টাইট বোলিংয়ে কোনো রান না দিয়ে শেষ করেন তার ওভার।

দ্বিতীয় ওভারে বরাবরের মতো তার ঘূর্ণির জাদু নিয়ে আসেন অধিনায়ক সালমা। এসেই কাভারে ক্যাচের শিকার বানান ডাচ ওপেনার সিগার্সকে। তিনে ব্যাটিংয়ে নামা ব্যাটসম্যান হ্যানেমাকে সাথে নিয়ে অবশ্য কিছুটা দৃঢ়তা দেখান আরেক ওপেনার ক্যালিস। জাহানারার পরের ওভারে দু’টি চার হাঁকান তিনি।

এরপর বোলিং পরিবর্তন করে কিছুটা প্রতিপক্ষকে চাপে ফেলতে পারলেও রান আটকানো কঠিন হয়ে পড়ছিল বাংলাদেশের মেয়েদের জন্য। ওঠুক তখনই দলের দ্বিতীয় আঘাতটি করেন পান্না ঘোষ। মারমুখি ক্যালিসকে ক্লিন বোল্ড করেন তিনি ২৩ রানে দুই উইকেট হারিয়ে কিছুটা চাপে পড়েন ডাচ মেয়েরা।

এদিকে অন্যপ্রান্তে বাঁহাতি স্পিনার নাহিদাও দুর্দান্ত লাইন লেন্থ বজায় রাখেন। ফলও পান হাতেনাতে। খেই হারানো ডাচ মেয়েরা তাদের তৃতীয় উইকেট হারান। এর কিছু পর আবারো পান্না। এবার কট অ্যান্ড বোল্ড। সাজঘর দেখান স্লবেকে। এরপর একের পর এক নিয়মিত বিরতিতে উইকেট হারাতে থাকে নেদারল্যান্ডস।

১৫ ওভার শেষে ৭ উইকেটে তাদের সংগ্রহ হয় ৩৮। এর সঙ্গে আর ৪ রান যোগ করতেই বাকি উইকেটগুলো হারায় ডাচ মেয়েরা।

রুমানা ও ফাহিমা ৩টি করে ও পান্না ২টি উইকেট নেন।
সহজ টার্গেট সামনে রেখে ব্যাটিংয়ে নেমে বরাবরের মতোই ঝড় তোলেন ফাহিমা। ফলাফল ৩ ওভারেই স্কোরবোর্ডে ২২ রান কোনো উইকেট না হারিয়ে।

তবে তাড়াহুড়ো করতে দিতেই কিনা চতুর্থ ওভারে ওপেনার আয়শা ও ৫ম ওভারে ফাহিমা ফিরে আসেন প্যাভিলিয়নে। সপ্তম ওভারে লেগ বিফোরের শিকার হন জ্যোতি। স্কোরবোর্ডে রান তখন ৩২। তবে পিংকি আর রুমানা মিলে অষ্টম ওভারেই নিশ্চিত করেন জয়।

গ্রুপের শেষ ম্যাচে মঙ্গলবার আরব আমিরাতের মেয়েদের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ।