আত্মঘাতী গোলের যন্ত্রণায় ফার্নান্দিনহো

ফুলকি ডেস্ক: আত্মঘাতী গোল এমনিতেই আত্মগ্লানির। কিন্তু এটা তো আর কেউ ইচ্ছে করে করে না। অনিচ্ছাকৃত এক ভুলের খেসারত দিচ্ছেন ব্রাজিলীয় তারকা ফার্নান্দিনহো

আত্মঘাতী গোল এমনিতেই যেকোনো ফুটবলারের জন্য গ্লানির কারণ। বিশ্বকাপে নিজেদের জালে ভুলে বল ঠেলে দেওয়ার হিসাব আজ থেকে ২৪ বছর আগে নিজের জীবন দিয়ে চুকিয়েছিলেন আন্দ্রেস এসকোবার। ১৯৯৪ বিশ্বকাপে যুক্তরাষ্ট্রের বিপক্ষে আত্মঘাতী গোলের জন্য দেশে ফেরার পরপরই গুলি করে হত্যা করা হয়েছিল কলম্বিয়ান তারকাকে।

এবারের বিশ্বকাপে আত্মঘাতী গোলের পর জীবনের হুমকি পেয়েছিলেন পেরুর ক্রিস্টিয়ান কেভা। এবার আত্মঘাতী গোলের যন্ত্রণা পোহাচ্ছেন ব্রাজিলের ফার্নান্দিনহো।

বেলজিয়ামের বিপক্ষে কোয়ার্টার ফাইনালে ব্রাজিলের হারের জন্য সবচেয়ে বেশি দায়ী করা হচ্ছে ফার্নান্দিনহোকে। তাঁর গায়ে লেগেই বেলজিয়াম ম্যাচের প্রথম গোলটা পেয়েছিল। পরে কেভিন ডি ব্রুইনার দুর্দান্ত গোলে আরও এগিয়ে গেলেও রেনেতো আগাস্তুর গোলে কিন্তু ব্যবধানটা কমিয়েছিল ব্রাজিল। ম্যাচের শেষ দিকে ব্রাজিলের লড়াই দেখে অনেক সমর্থকই হয়তো এখন ভাবছেন, ফার্নান্দিনহোর গোলটি না হলে হয়তো ম্যাচটা হারতে হতো না তাঁদের দলকে।

ফার্নান্দিনহো এখন চারদিক থেকেই হুমকি পাচ্ছেন। হত্যার হুমকিও আছে এর মধ্যে। কেউ কেউ তাঁকে বর্ণবিদ্বেষী গালিগালাজও করছেন। দেশের হয়ে খেলাটা যে অনেক সময় মানসিক যন্ত্রণারও কারণ হয়, সেটা এখন ফার্নান্দিনহো খুব ভালো করেই বুঝছেন।