সরকারের বিরুদ্ধে ফয়সালাটা আগামী তিন মাসেই করবো: দুদু

স্টাফ রিপোর্টার : ‘বেগম জিয়া বাংলাদেশকে বিশ্বের কাছে পরিচিত করেছেন। যার স্বামী স্বাধীনতার ঘোষক এবং একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা তার জন্য কি আমরা কিছুই করতে পারবো না, একটা লাঠির বাড়িও খেতে পারব না, একদিন জেলও খাটতে পারবো না! শুধু কি একজনের ওপর দায়ভার চাপিয়ে দিয়ে গা বাঁচিয়ে থাকবো, নিরাপদে থাকবো আমরা! তাই আসুন ভেদাভেদ ভুলে এই তিনটা মাস কাজ করে ফয়সালাটা আগামী তিন মাসেই করবো এমন প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হই’ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপি ভাইস-চেয়ারম্যান শামসুজ্জামান দুদু। রবিবার জাতীয় প্রেসক্লাবের তৃতীয় তলায় কনফারেন্স লাউঞ্জে বেগম খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা ও নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে এক প্রতিবাদ সভায় তিনি এসব কথা বলেন। প্রতিবাদ সভার আয়োজন করে স্বেচ্ছাসেবক ফোরাম কেরানীগঞ্জ। স্বেচ্ছাসেবক ফোরাম কেরানীগঞ্জ এর সভাপতি সোহেল রানার সভাপতিত্বে সভায় আরও বক্তব্য দেন- বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, যুগ্ম মহাসচিব সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, নির্বাহী কমিটির সদস্য আবু নাসের মুহাম্মদ রহমাতুল্লাহ ও নিপুন রায় চৌধুরী প্রমুখ। শামসুজ্জামান দুদু বলেন, ‘আপনারা মনে করেছেন সারাজীবনের জন্য ক্ষমতায় এসেছেন। একটু পেছনের দিকে তাকিয়ে দেখেন আপনাদের চেয়েও অনেক জনপ্রিয় নেতা এই দেশের মাটিতে স্বৈরতান্ত্রিক পথে পা রাখার পরে ক্ষমতায় থাকতে পারেনি। এ মাটি বড় নির্মল ভালোবাসায় যেমন সিক্ত হয় আবার গণতন্ত্রের বিরুদ্ধে গেলে লৌহকঠোরও হয়’

কৃষকদলের এই সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘সামনে আমাদের তিনটি মাস আছে। যা কিছু করার এই তিনমাসেই করতে হবে। আমরা যদি আমাদের উদ্যোগ আমাদের কর্মসূচি সঠিকভাবে দিতে পারি এবং পালন করতে পারি তাহলে আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি খালেদা জিয়াকে মুক্তি করতে পারবো এবং তারেক রহমানকে দেশে ফিরিয়ে আনতে পারবো’ বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘আওয়ামী লীগের উদ্দেশ্যে আমরা বলতে চাই তত্ত্বাবধায়ক সরকারের প্রশ্নে আপনারা যা যা করেছেন তার একবিন্দুও বেশি আমরা করবো না। আপনারা দেশে ১৭৪ দিন হরতাল করেছেন। আমরা ১৭৫ দিনে যাব না। ১৭৪ দিনেই শেষ করবো। আপনারা জনতার মঞ্চ বানিয়েছেন, সচিবকে রাজপথে নামিয়েছেন। আমরা সচিবকে নামাবো কিনা এই মুহূর্তে বলবো না, তবে এ জিনিসটা আমাদের মাথায় থাকবে।’ দুদু আরো বলেন, ‘সংবিধানকে আপনারা যেভাবে কাটাছেঁড়া করে নিজেদের সংবিধান করেছেন সেটা আমরা করবো না। আমরা গণতন্ত্রের যোগ দেবো, আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করবো। তা করতে গিয়ে যদি চার লক্ষ হাজার কোটি টাকার চুরির জন্য দোষী সাব্যস্ত হোন তাহলে আমাদের করার কিছু থাকবে না। আপনারা ইলিয়াস আলী সহ যাদেরকে ঘুম করেছেন আমরা শেষ পর্যন্ত চাইবো তাদেরকে ফিরিয়ে আনার।’