জাকির নায়েককে ফেরত পাঠানো হবে না -মাহাথির

ফুলকি অনলাইন: ভারত সরকারের অনুরোধ সত্ত্বেও খ্যাতিমান ইসলামি বক্তা জাকির নায়েককে ভারতে ফেরত পাঠানো হবে না বলে জানিয়েছেন মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী ডা. মাহাথির মোহাম্মাদ।

শুক্রবার কুয়ালালামপুরে এক সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি একথা জানান।

এদিন এক সাংবাদিকের প্রশ্নের জবাবে মাহাথির বলেন, যতক্ষণ তিনি কোনও সমস্যা তৈরি করছেন না, ততক্ষণ আমরা তাকে ফেরত পাঠাবো না। কারণ তাকে স্থায়ীভাবে বসবাসের অনুমতি দেওয়া হয়েছে।

সেইসাথে ভারতীয় সংবাদ মাধ্যমে জাকির নায়েককে ফেরত পাঠানোর সংবাদ প্রকাশের পর তিনি এটিকে ভিত্তিহীন বলে উড়িয়ে দিয়েছেন। জাকির নায়েক বলেছেন, ‘এখবর সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন ও ভুয়া। অন্যায় বিচার থেকে নিরাপদ বোধ না করার পর্যন্ত দেশে ফেরার কোন পরিকল্পনা নেই আমার’।

যদিও আগের দিন আগে ভারতীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে মুখপাত্র রাভিশ কুমার বলেছিলেন, ‘এই পর্যায়ে আমাদের অনুরোধ মালয়েশিয়ার বিবেচনায় রয়েছে। কুয়ালালামপুরে আমাদের হাই কমিশন বিষয়টি নিয়ে নিয়মিত মালয়শিয়া কর্তৃপক্ষের সাথে যোগাযোগ করছে।’

৫২ বছর বয়সী জাকির নায়েক এক বছরেরও বেশি সময় ধরে দেশের বাইরে অবস্থান করছেন।

গত বছর ঢাকার গুলশানে হলি আর্টিজান রেস্তোরায় উগ্রবাদীদের হামলায় জড়িতদের অন্তত দুইজন টেলিভিশন বক্তা জাকির নায়েককে অনুসরণ করতো এমন খবর প্রকাশের পর তোলপাড় শুরু হয়।

ওই বছর তার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের হলে ভারত ছেড়ে যান তিনি। কিছুদিন সৌদি আরবে থাকার পর মালয়েশিয়ায় স্থায়ীভাবে বসবাস শুরু করেন। মালয়শিয়া সরকার তাকে স্থায়ীভাবে বসবাসের অনুমতি দিয়েছে।

২০১৬ সালের ডিসেম্বরে জাকির নায়েকের বিরুদ্ধে মামলা করা হয় ভারতে। জানুয়ারিতে তার নামে জারি হয় সমন। এরপর আরও তিনবার সমন জারি হয় তার বিরুদ্ধে। তবে জাকির নায়েক ভারতে ফেরেননি। ভারত সরকার তার প্রতিষ্ঠিত গবেষণা প্রতিষ্ঠান ও তার সাথে সংশ্লিষ্ট একাধিক প্রতিষ্ঠান বন্ধ করে দিয়েছে।