সকল অপারেটরেই কলরেট ৪০ পয়সা

বিশেষ প্রতিবেদন: নম্বর না বদলিয়ে অপারেটর পরিবর্তন সেবা বা এমএনপি চালুর আগেই অভিন্ন কলরেট চালু হতে পারে। এজন্য খসড়া তৈরি করে একটি প্রস্তবনা অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়েছে। খসড়া কলরেটে ৪০ পয়সা অভিন্ন রেট প্রস্তাব করা হয়েছে।

জানা গেছে, অর্থমন্ত্রণালয় এ কলরেট চূড়ান্ত করে পাঠালে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয় তা প্রকাশ করবে। এই সেবা আগস্টের ১ তারিখে চালু হতে পারে।

দেশে দুই ধরনের কলরেট চালু আছে, অননেট (একই মোবাইল নেটওয়ার্ক) ও অফনেট (এক নেটওয়ার্ক থেকে অন্য নেটওয়ার্কে) । মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীদের ভালো নেটওয়ার্ক ও কম খরচে উন্নত সেবা দিতে এমএনপি সেবার প্রধান বাঁধা অননেট ও অফনেট কলরেট। তাই অননেট ও অফনেট তুলে দিতেই সরকারের এই পরিকল্পনা।

বর্তমানে বিটিআরসির নির্ধারণ করে দেওয়া সর্বনিম্ন অননেট চার্জ প্রতি মিনিট ২৫ পয়সা, অফনেট ৬০ পয়সা। সর্বোচ্চ চার্জ প্রতি মিনিট দুই টাকা। মোবাইল ফোন অপারেটররা এই সীমার মধ্যে থেকে নিজেদের অপারেটরের চার্জ নির্ধারণ করেছে। ফলে একেক অপারেটরের চার্জ একেকরকম। মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীরা বিভিন্ন অপারেটরে অননেটে ৩০ থেকে ৩৯ পয়সা এবং অফনেটে ৯১ পয়সা থেকে এক টাকা ৪০ পয়সায় কল করার সুযোগ পাচ্ছেন বর্তমানে। এক রেট চালু হলে এই পার্থক্য এবং বৈষম্য থাকবে না।

এদিকে এমএনপির টেস্টিং শুরু করেছে গ্রামীণফোন, রবি ও বাংলালিংক। রাষ্ট্রায়ত্ব মোবাইলফোন অপারেটর টেলিটক এমএনপি নেটওয়ার্কে এখনও যুক্ত হয়নি। সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত হয়নি ল্যান্ডফোন বিটিসিএল (বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ কোম্পানি লিমিটেড) ও পিএসটিএন (প্রাইভেট সুইচ টেলিফোন নেটওয়ার্ক) অপারেটর কীভাবে এই প্রক্রিয়ায় যুক্ত হবে। তবে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর আশা, বিটিসিএল এমএনপি নেটওয়ার্কে আসতে অসহযোগিতা করবে না।

জানতে চাইলে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তিমন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার জানান, ‘৪০ পয়সা কলরেটের প্রস্তাব অর্থ মন্ত্রণালয়ে আছে। ওখান থেকে এলে আমি দেখবো কী করা যায়।’

এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘টেলিটকের এই প্রক্রিয়ার বাইরে থাকার কোনও কারণ দেখি না। চলে আসবে। আর বিটিসিএল-এর সঙ্গে আমার আলাপ হয়েছে। তারা এই প্রক্রিয়ায় যুক্ত হতে অসহযোগিতার কথা বলেনি।’

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘কলরেট ৪০ পয়সা হচ্ছে নাকি ঊর্ধ্বসীমা বা নিম্নসীমা থাকবে তা অর্থ মন্ত্রণালয় জানাবে। দেখতে হবে অর্থ মন্ত্রণালয় বিষয়টি কীভাবে দেখে।’