রাজধানীর বাজারে মাছ-সবজির দাম চড়া

স্টাফ রিপোর্টার : রাজধানীতে বেড়েছে মাছ ও সবজির দাম। সপ্তাহের ব্যবধানে বিভিন্ন সবজিতে দাম বেড়েছে ৫ থেকে ১০ টাকা। একই সঙ্গে মাছের দামও চড়া। কাঁচামচিরের দাম কেজিতে ছাড়িয়েছে দেড়শ টাকা। বুধবার (৪ জুলাই) রাজধানীর খিলগাঁও, রামপুরা, মুগদাসহ বিভিন্ন বাজার ঘুরে ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে এসব তথ্য জানা গেছে। খিলগাঁওয়ের সবজি বিক্রেতা আলমগীর জানান, গত কয়েক দিন ধরে সবজির দাম চড়া। কেজিতে ৫ থেকে ১০ টাকা বেড়েছে বেশিরভাগ সবজির দাম। কাঁচামরিচের দাম ১৫০ টাকা হয়েছে। কয়েক দিন আগেও কাঁচামরিচ ৬০ থেকে ৮০ টাকায় বিক্রি করেছি। হঠাৎ দাম বেড়েছে। দাম বাড়ার কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ঈদের পর সরবরাহ কম থাকায় কাঁচামরিচের দাম বেড়েছে।

ঢাকা বিভিন্ন কাঁচাবাজারে প্রতি কেজি কাঁচামরিচ বিক্রি হচ্ছে ১৪০-১৫০ টাকায়। গত সপ্তাহে ছিল ১২০ টাকা। কেজিতে ১০ টাকা বেড়ে টমেটো বিক্রি হচ্ছে ১২০-১৪০ টাকায়। এছাড়া বেগুন বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৬০ টাকায়। প্রতি কেজি সাদা আলু ২৮-৩০ টাকা, গত সপ্তাহে ছিল ২৪ থেকে ২৬ টাকা।

আগের বাড়তি দামেই ৬০-৭০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে করলা। এছাড়া মুলা ৪০ টাকা, শশা ৪০-৫০ টাকা, ঢেঁড়স ৪০ থেকে ৫০ টাকা, ঝিঙা, কাকরল, চিচিঙ্গা ৪০ থেকে ৫০ টাকা, পেঁপে ৩০ থেকে ৪০ টাকা, মিষ্টি কুমড়ার পিচ ২০-৩০ টাকা, বরবটি ৬০ থেকে ৭০ টাকা, কুমড়া ৫০ টাকা, লতি ৫০ টাকা, কাঁচা কলা প্রতি হালি ৩০-৩৬ টাকা, লেবু ১০-২০ টাকা হালিতে বিক্রি হচ্ছে। প্রতি আঁটি লাউ শাক ২৫ থেকে ৩০ টাকা, লাল শাক, পালং শাক ১০ থেকে ২০ টাকা, পুঁই শাক ও ডাটা শাক ২০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া আগের বাড়তি দামেই বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ। দেশি পেঁয়াজ ৪০-৪৫ টাকা, ভারতীয় পেঁয়াজ ২৫-৩০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। মাছ ঘুরে দেখা গেছে, প্রতি কেজি রুই ৩৬০-৪০০ টাকা, কাতলা ৪০০ টাকা, তেলাপিয়া ১৪০-২০০, আইড় ৪০০-৬০০ টাকা, মেনি মাছ ৪৫০-৫০০, বাইলা ৩৬০-৫০০ টাকা, বাইন ৪০০-৬০০ টাকা, গলদা চিংড়ি ৪৫০-৬০০ টাকা, পুঁটি ১৮০-২০০ টাকা, পোয়া ৪০০-৬০০ টাকা, মলা ৩২০-৪০০ টাকা, পাবদা ৪০০-৫০০ টাকা, বোয়াল ৪৫০-৫০০ টাকা, শিং ৪০০-৭০০, দেশি মাগুর ৫০০-৭০০ টাকা, শোল ৫০০-৭০০ টাকা, পাঙ্গাস ১৪০-১৬০ টাকা, চাষের কৈ ২০০-২৮০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া ৭০০ থেকে ৮০০ গ্রামের ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ৫০০ থেকে ৭০০ টাকায়।

মাছ বিক্রেতা শহীদ বলেন, আড়তে মাছের দাম বেশি। তাই কম কম মাছ এনে বিক্রি করছি। পাবদা মাছ আড়তেই কেনা পড়ে সাড়ে তিনশ’ থেকে চারশ’ টাকা। পাঙ্গাস মাছ আড়তেই ১৩০ টাকা, খুচরা কত বিক্রি করব? মাছের দাম বাড়ার কারণ হিসেবে তিনি বলেন, ঈদের কারণে অনেকে মাছ ধরে নাই। তাই সরবারহ কম থাকায় দাম বেড়েছে। আড়তে মাছ আসলে আবার দাম কমে যাবে। ডিমের দামও বেড়েছে। ফার্মের লাল ডিম প্রতি হালি ৩০-৩২ টাকা। এছাড়া দেশি মুরগির ডিম ৪০ থেকে ৪৪ টাকা ও হাঁসের ডিম ৪৬ থেকে ৪৮ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।