পরাজিত হাসানের নামে রাস্তা চান গাজীপুরের নতুন মেয়র

গাজীপুর প্রতিনিধি :  গাজীপুর সিটি করপোরেশনে সদ্য নির্বাচিত মেয়র মো. জাহাঙ্গীর আলম তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির হাসান উদ্দিন সরকারের সঙ্গে সাক্ষাৎ করে বলেছেন, তিনি হাসানের নামে একটি রাস্তা করতে চান। বুধবার সকালে টঙ্গীর আউচপাড়ায় মিত্তিবাড়ি আহসানউল্লাহ সরকার এতিমখানা ও মাদ্রাসায় গিয়ে জাহাঙ্গীর তার সঙ্গে সাক্ষাৎ করেন। তারা কুশল বিনিময়সহ কোলাকুলি করেন; একে অপরকে মিষ্টি খাইয়ে দেন।

মেয়র জাহাঙ্গীর বলেন, “হাসান উদ্দিন একজন মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তার স্মৃতি রক্ষার্থে আমি তার নামে একটি রাস্তা করতে চাই। বিরোধী দলকে সম্মান দিয়ে আমি রাজনৈতিকভাবে মেয়র পদটা চালাতে চাই।” গত ২৬ জুন ভোটে ৩৯ বছর বয়সী জাহাঙ্গীর গাজীপুরের মেয়র হন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন বিএনপির হাসান সরকার। হাসান বলেন, “নির্বাচনের আগে জাহাঙ্গীর জনগণকে যেসব ওয়াদা দিয়েছেন তা যেন তিনি বাস্তবায়ন করেন। সব ভাল কাজে আমি জাহাঙ্গীরকে সহযোগিতা করব। মেয়রকে বলব, মনে যা পোষণ করেন তাই যেন মুখে বলেন। “কোনো কোনো মানুষ কলম রাখেন দুইটা। এক কলমের দস্তখতে চাকরি হবে, অপর কলমের দস্তখতে চাকরি হবে না। এ প্র্যাক্টিস আমাদের ত্যাগ করতে হবে বলে আমি মনে করি। লোক দেখানো এবং ফটোসেশন করাটাই যদি উদ্দেশ্য হয়ে থাকে তাহলে আমার কাছে আসার কোনো অর্থ নেই। এখানে আসা তখনই অর্থবহ হবে, যখন যা বলেন তা যদি করেন।”

জাহাঙ্গীরকে সময় সম্পর্কে খেয়াল রাখার পরামর্শ দিয়ে হাসান বলেন, “এ বয়সে সময়কে মূল্য দেবেন। সময় সম্পর্কে খেয়াল রাখতে হবে। তাহলে কাজে কখনও পেছনে পড়বেন না। না হলে পেছনে পড়ে যাবেন।” আর জাহাঙ্গীর সহযোগিতা চেয়েছেন হাসানসহ সবার। জাহাঙ্গীর বলেন, “দায়িত্ব পালনকালে আমি সব সময় হাসান উদ্দিনের পরামর্শ ও সহযোগিতা কামনা করব। সবাই মিলেমিশে এ নগরীর উন্নয়নে কাজ করব। এলাকার উন্নয়নে সবাই হাতে হাত রেখে, কাঁধে কাঁধ রেখে একসঙ্গে মিলেমিশে উন্নয়ন কাজ করে যাব। সবার সহযোগিতায় একটি সুন্দর, পরিচ্ছন্ন নগরী গড়তে চাই। নগরীতে একটি শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রাখব। “আমি গাজীপুর সিটিকে কাঙ্ক্ষিত ক্লিন সিটি গ্রিন সিটি করতে যা যা করা দরকার সবাইকে নিয়ে তা করতে চাই। এজন্য মুসলামন, হিন্দু, খ্রিস্টান সকল ধর্ম-বর্ণের  মানুষকে ভেদাভেদ ভুলে সহযোগিতার আহ্বান জানাই। সিটি করপোরেশনের কাজ করতে গিয়ে জনগণের জানমাল রক্ষার্থে ও কাজের জন্য আমার যা যা সিদ্ধান্ত নেওয়া দরকার হবে তা নিতে বাধ্য হব।”