বাংলাদেশ থেকে পাচার করা সারে চার হাজার কোটি টাকা সুইস ব্যাংকে

স্টাফ রিপোর্টার: অর্থ পাচার করে সুইজারল্যান্ডের ব্যাংকগুলোতে জমানো বাংলাদেশি নাগরিকদের অর্থের পরিমাণ চার হাজার ৫৩ কোটি টাকা।

গতকাল সুইজারল্যান্ডের কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রকাশিত প্রতিবেদনে এ তথ্য দেওয়া হয়েছে।

প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, বাংলাদেশি নাগরিকরা প্রতি বছর প্রায় এক লাখ কোটি টাকা পাচার করে থাকে। এর একটি বড় অংশ সুইস ব্যাংকে জমা রাখা হয়। এ ছাড়া অর্থ পাচারকারীদের প্রধান গন্তব্য হিসেবে মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, কানাডা, থাইল্যান্ড শীর্ষ অবস্থানে রয়েছে।

সুইস কেন্দ্রীয় ব্যাংকের প্রতিবেদনে আরো দেখা গেছে, ২০১৭ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত সুইজারল্যান্ডের ব্যাংকগুলোতে বাংলাদেশিদের জমার পরিমাণ ৪৮ কোটি ১৩ লাখ সুইস ফ্রাঁ, বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ ৪ হাজার ৫৩ কোটি টাকা। ২০১৬ সালে সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের অর্থের পরিমাণ ছিল ৬৬ কোটি ১৯ লাখ সুইস ফ্রাঁ বা ৫ হাজার ৫৭৪ কোটি টাকা। এই হিসেবে গতবছর বাংলাদেশিদের অর্থের পরিমাণ কিছুটা কমেছে।

জানা গেছে, কোনো বাংলাদেশি নাগরিকত্ব গোপন করে অর্থ জমা রাখলে ওই অর্থ এ হিসাবের অন্তর্ভুক্ত নয়। গচ্ছিত রাখা স্বর্ণ বা মূল্যবান সামগ্রীর আর্থিক মূল্যমানও হিসাব করা হয়নি প্রতিবেদনে।

প্রসঙ্গত, বিশ্বের পুঁজিপতিদের অর্থ দেশটির ব্যাংকে গোপনে গচ্ছিত রাখার জন্য সুইজারল্যান্ডে ব্যাংকগুলো জনপ্রিয়। গ্রাহকের নাম-পরিচয় গোপন রাখতে দেশটির ব্যাংকগুলো প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। এ কারণে অবৈধ আয় ও কর ফাঁকি দিয়ে জমানো টাকা পাচারের অন্যতম জায়গা সুইস ব্যাংকগুলো।