কক্সবাজারে প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে জেলা ছাত্রদল নেতা নিহত

কক্সবাজার সংবাদদাতা:

কক্সবাজার শহরে ‘পৌর নির্বাচন’ নিয়ে আলোচনাকে কেন্দ্র করে কথা কাটাকাটির একপর্যায়ে প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে এএইচএম তানভীর (২৮) নামের একজন জেলা ছাত্রদল নেতা নিহত হয়েছেন। নিহত তানভীর কক্সবাজার জেলা ছাত্রদলের প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক।

IFrame

শুক্রবার (২৯ জুন) বিকাল ৪টার দিকে কক্সবাজার শহরের বাঁচামিয়ার ঘোনা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, নিহত তানভীর (২৭) কক্সবাজার শহরের দক্ষিণ রুমালিয়ারছড়া এলাকার আশু আলী ঘোনার মোহাম্মদ সোলায়মানের ছেলে।

স্থানীয় লোকজন ও নিহতের স্বজনদের বরাত দিয়ে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আফরুজুল হক টুটুল বলেন, ‘শুক্রবার বিকালে কক্সবাজার শহরের বাঁচামিয়ার ঘোনা এলাকার নুরুল আমিন সওদাগরের দোকানের সামনে পৌর নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থীদের নিয়ে স্থানীয়দের দুটি পক্ষের আলাপ-আলোচনার এক পর্যায়ে তর্ক-বিতর্কের জেরে এ ঘটনা ঘটেছে।’

তিনি আরও জানান, ‘দুই পক্ষের লোকজন কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে হাতাহাতিতে জড়িয়ে পড়ে। এসময় প্রতিপক্ষের লোকজনের ছুরিকাঘাতে এইচ এম তানভীর আহত হন। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।’ নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে বলে জানান অতিরিক্ত পুলিশ সুপার।

নিহতের ছোট ভাই ইবনে সিনা বলেন, ‘কক্সবাজার পৌরসভা নির্বাচনে ৭ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলার প্রার্থী আশরাফুল হুদা সিদ্দিকী জামশেদের আসার খবর পেয়ে ঘোনা এলাকার নুরুল আমিন সওদাগরের দোকানের সামনে অবস্থান করছিলেন তানভীর। সেখানে আগে থেকে উপস্থিত ছিল স্থানীয় বাসিন্দা আবুল বশর, নেজাম উদ্দিন, মিজান উদ্দিন, আতিক উল্লাহ, মোস্তাক আহমদ, দেলোয়ার হোসেন টুলু, জাহাঙ্গীর আলম, মো. রায়হান ও শাহাদাত হোসেনসহ ১০-১২ জন। তারা পৌরসভার নির্বাচন নিয়ে আলাপ-আলোচনার এক পর্যায়ে তানভীরের সঙ্গে তর্ক-বিতর্কে জড়িয়ে পড়ে। এসময় হাতাহাতির সময় তাদের মধ্য থেকে তানভীরকে ছুরিকাঘাত করা হয়।’ এইচ এম তানভীর কক্সবাজার জেলা ছাত্রদলের প্রশিক্ষণ বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন বলে জানান তার ভাই ইবনে সিনা। এ ঘটনায় জড়িতদের গ্রেফতারে পুলিশ অভিযান চালাচ্ছে বলে জানিয়েছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. আফরুজুল হক টুটুল।