ধামরাইয়ে ধর্ষণের পর শিশু হত্যার ঘটনায় বিএনপি নেতার ছেলে আটক

ধামরাই প্রতিনিধি : ধামরাইয়ের রৌহা গ্রামের সাত বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে সোহান (২২) নামে এক যুবককে আটক করেছে পুলিশ।

মঙ্গলবার রাতে রৌহা বাজার থেকে এ এস আই দীনেশ ঘোষের নেতৃত্বে পুলিশ তাকে আটক করে।

আজ বুধবার ১০দিনের রিমান্ড চেয়ে তাকে আদালতে পাঠানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা এস আই বাবলু শরিফ।

সোহান উপজেলার সুয়াপুর ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ড বিএনপির সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক ইউপি সদস্য রমজান আলী গেদুর ছেলে।
উল্লেখ্য, গত সোমবার দুপুরে রৌহা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রথম শ্রেণির শিক্ষার্থী পূর্ণিমাকে ডিম ও ডাল কেনার জন্য তার মা স্থানীয় এক দোকানে পাঠায়। ডিম ও ডাল কেনার পর সে আর বাড়ী ফেরেনি। ওইদিন বিভিন্ন স্থানে অনেক খোঁজাখুজি করে তাকে পাওয়া যায়নি। মঙ্গলবার ভোরে বাড়ীর প্রায় ৩শত গজ দূরে একটি বাঁশঝাড়ের ভেতর তার লাশ দেখতে পায় এলাকাবাসী। রক্তাক্ত ও গলায় আঘাতের চিহ্ন থাকাবস্থায় লাশ উদ্ধার করে ময়না তদন্তের জন্য শহীদ সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠায় পুলিশ।

এ ঘটনায় মঙ্গলবার রাতে নিহতের বাবা সামসুল ইসলাম বাদী হয়ে অজ্ঞাত আসামী উল্লেখ করে থানায় মামলা দায়ের করে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে সোহানকে আটক করে পুলিশ। এলাকাবাসী জানায়, মাদকাসক্ত সোহানকে আটক করার পর তার সঙ্গীরা গা ঢাকা দিয়েছে।
এ ব্যাপারে ধামরাই থানার অফিসার ইনচার্জ মোহাম্মাদ রিজাউল হক বলেন, আলামত দেখে ধারণা করা হচ্ছে শিশুটিকে ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে। এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে সোহানকে আটক করা হয়।