সৌদি আরবের লক্ষ্যে ইয়েমেনের ক্ষেপণাস্ত্র হামলা

ফুলকি অনলাইন: গভীর রাতে হঠাৎই প্রবল আতঙ্কে জেগে উঠে সৌদির রাজধানী রিয়াদ। একের পর এক বিস্ফোরণের শব্দে কানে তালা লেগে যায় রিয়াদবাসীর। সৌদি ক্ষেপণাস্ত্র প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা থেকে ছুটে যায় একের পর এক ক্ষেপণাস্ত্র। বিস্ফোরণে লাল হয়ে উঠে রাজধানীর আকাশ।

রবিবার (২৩ জুন) গভীর রাতে এই ছিল রিয়াদের পরিস্থিতি। ইয়েমেনের হুতি বিদ্রোহীদের ছোড়া ক্ষেপণাস্ত্র মাঝ আকাশেই ধ্বংস করে দেয় যুক্তরাষ্ট্র থেকে কেনা সৌদি প্যাট্রিয়ট মিসাইল শিল্ড। তবে হুতি বিদ্রোহীরা অভিযান সফল বলে দাবি করেছে।

সৌদি আরবের সরকারি সংবাদমাধ্যম ‘এখবারিয়া টেলিভিশন’ জানিয়েছে, রিয়াদের ওপর একাধিক ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় ইরান সমর্থিত হুতি বিদ্রোহীরা। তবে ক্ষেপণাস্ত্রগুলিকে মাঝ আকাশেই নষ্ট করে দেয়া হয়। এ ঘটনায় কোনও হতাহতের খবর নেই।

যদিও হুতি সংবাদমাধ্যম ‘আল মাসিরা’ দাবি করেছে, সৌদি রাজধানীতে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়সহ একাধিক গুরুত্বপূর্ণ জায়গায় আঘাত হানা হয়েছে। অভিযান সম্পূর্ণ সফল।

২০১৫ সালে ইয়েমেনের রাজধানী সানাসহ বিস্তীর্ণ অঞ্চল দখল করে হুতি বিদ্রোহীরা। তারপরই ইয়েমেনি সরকারের সমর্থনে ওই দেশে সামরিক অভিযান শুরু করে সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরশাহীর যৌথবাহিনী।

দীর্ঘদিন ধরেই ইয়েমেনে সরকার উৎখাতে লড়াই চালাচ্ছে শিয়া সম্প্রদায়ের হুতি বিদ্রোহীরা। তাদের সমর্থন দিচ্ছে শিয়াপ্রধান দেশ ইরান।

অপরদিকে ইয়েমেনে সরকারের সমর্থনে লড়াই চালাচ্ছে ওহাবি প্রধান সৌদি আরব। হুতি বিদ্রোহীদের বিরুদ্ধে যৌথবাহিনীর নেতৃত্ব দিচ্ছে সৌদি আরবের সেনাবাহিনী।

ফলে বেশ কয়েকবার রিয়াদকে লক্ষ্য করে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালিয়েছে হুতিরা। এর আগেও ইয়েমেন-আরব সীমান্তের পার্শ্ববর্তী শহর জাজান ও নাজরানে ক্ষেপণাস্ত্র হামলা চালায় হুতি যোদ্ধারা।