শান্তিপূর্ণ ভোটগ্রহণ চলছে, অভিযোগ মানে গাজীপুরবাসীকে অপমান: নানক

শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ চলছে, অযথা অভিযোগ করে গাজীপুরবাসীতে অপমান করা হচ্ছে। অভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণ অনেক কেন্দ্রে বিএনপির এজেন্ট নেই বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর কবির নানক।

তিনি বলেছেন, গাজীপুর সিটিতে আজকের নির্বাচনে বিভিন্ন কেন্দ্রে বিএনপি কোনো এজেন্ট দেয়নি। এর দু’টি কারণ- এক প্রার্থীর দুর্বলতা দুই দলীয় কোন্দল। তারা দলীয় দৈন্যতায় ভুগছে। তাই নানা অভিযোগ করে উধোর পিণ্ডি বুধোর ঘাড়ে চাপানোর চেষ্টা করছে তারা।

সোমবার (২৬ জুন) রাজধানীর ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে জিসিসি নির্বাচন উপলক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে নানক এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, গাজীপুরের মানুষ ২০১৩ সালে বিএনপিকে ভোট দেয়। কিন্তু ওই সময় গাজীপুরের কোনো উন্নয়ন হয়নি। এবার স্বভাবতই বিএনপি সেখানকার জনগণ বিএনপিকে প্রত্যাখ্যান করবে। ভোটাররাই আওয়ামী লীগের প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলমকে বিপুল ভোটে জয়ী করবে।

নির্বাচনে ভোট দিতে গিয়ে সকালে বিএনপি প্রার্থী হাসান উদ্দিন সরকার অভিযোগ করেন, ‘ভোট সুষ্ঠু হবে কি না, তা নিয়ে আমার শঙ্কা আছে। বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে আমার পোলিং এজেন্টদের মারধর করে বের করে দেওয়া হচ্ছে। সাদাপোশাকে নেতা–কর্মীদের পুলিশ গ্রেপ্তার করছে। সব ভোটকেন্দ্রের অবস্থা বোঝার পর বোঝা যাবে নির্বাচন সুষ্ঠু হয়েছে কি না। যে কৌশলে ভোট নেওয়া হচ্ছে, তাতে কয় শতাংশ ভোট হবে, তা নিয়ে সংশয় রয়েছে।’

পরে রাজধানীর নয়াপল্টনেও দলের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে এজেন্টদের বের করে দেওয়া ও ভোট জালিয়াতির অভিযোগ করেন বিএনপির মুখপাত্র রিজভী।

এর জবাবে আওয়ামী লীগ নেতা নানক বলেন, বিএনপি নির্বাচন ব্যবস্থাকে প্রশ্নবিদ্ধ করছে। এটা তাদের মতলববাজি। তাদের মতলব হচ্ছে গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়াকে ব্যহত করে অগণতান্ত্রিক ব্যবস্থাকে উৎসাহিত করা।ক্ষমতা হারিয়ে তারা এখন উন্মাদ হয়ে গেছে। তাই ভিত্তিহীন নানা অভিযোগ করছেন।