সাভারে আ. লীগ-যুবলীগের গোলাগুলি,সেলিম মন্ডলসহ আটক ৩

স্টাফ রিপোর্টার : সাভারের বিরুলিয়া ইউনিয়নের কালিয়াকৈর গ্রামে একটি নির্মাণাধীন কারখানার মালামাল সরবরাহকে কেন্দ্র করে আওয়ামী লীগ ও যুবলীগের মধ্যে গুলি বিনিময়নের ঘটনায় গ্রেপ্তারকৃত সাভার থানা যুবলীগের সভাপতি ও জেলা পরিষদ সদস্য সেলিম মন্ডলসহ তিন আসামীকে আদালতে প্রেরণ করেছে পুলিশ।সারা দিন নানা গুঞ্জনের পর বুধবার ৩টায় সাভার মডেল থানায় দুটি মামলা দায়েরের পরে তাদেরকে সাদা রঙের একটি মাইক্রোবাসে করে আদালতে প্রেরণ করা হয়।যুবলীগ নেতা ও জেলা পরিষদের সদস্য সেলিম মন্ডলের ছোট ভাই মহসিন মন্ডল বাদী হয়ে আওয়ামী লীগের দুই নেতার নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের করেন। অন্যদিকে গ্রেফতার আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুস সামদ মোল্লার ছেলে নাজমুল হোসাইন বাদী হয়ে যুবলীগ নেতার নামে পৃথক অপর একটি মামলা দায়ের করেন।পুলিশ জানায় মঙ্গলবার রাতে কালিয়াকৈর গ্রামে একটি নির্মাণাধীন কারখানার মালামাল সরবরাহকে কেন্দ্র করে কালিয়াকৈর গ্রামে বিরুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সামাদ মোল্ল্যা ও সাভার থানা যুবলীগের সভাপতি সেলিম মন্ডলের মধ্যে সংঘর্ষে বাধে। এসময় উভয় এর মধ্যে দফায় দফায় গুলি বিনিময় হয়। এ সংঘর্ষে আহত হয় অন্তত ৫ জন। পরে খবর পেয়ে সাভার মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে। এঘটনায় পুলিশ রাতেই সাভার উপজেলা যুবলীগের সভাপতি ও ঢাকা জেলা পরিষদের সদস্য সেলিম মন্ডল,বিরুলিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সামাদ মোল্ল্যা ও বিরুলিয়ার ১ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ইদ্রিস ওরফে ইদ্দাকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ। পরে আজ সকালে সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আলী হায়দারসহ নেতাকর্মীরা আটক তিনজনকে থানা থেকে ছেড়ে নিতে যান। এসময় সাভার মডেল থানায় দফায় দফায় দফায় বৈঠক করার পরেও তাদেরকে ছেড়ে নিতে পারেননি তারা। এদিকে দুপুরে সাভার মডেল থানায় সংসদ সদস্য ডা.এনামুর রহমান গিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে সমঝোতা করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হন। পরে দুপুরে সাভার মডেল থানায় দুটি মামলা দায়ের করে আটক তিনজনকে আদালতে প্রেরণ করে পুলিশ। এদিকে সকাল থেকে সাভার মডেল থানায় অতিরিক্ত নিরাপত্তা জোরদার করা হয়। জনসাধারণকে থানায় প্রবেশ করতে দেয়নি পুলিশ।এঘটনায় সাভারের সংসদ সদস্য ডা.এনামুর রহমান বলেছেন তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ভাবে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।মামলার বিষয়টি নিশ্চিত করে সাভার মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মহসিনুল কাদির বলেন, বিরুলিয়ার কালিয়াকৈর গ্রামে সংঘর্ষের ঘটনায় দুই গ্রুপের পক্ষ থেকে থানায় পৃথক দুটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।’ পরে দুপুর পৌনে তিনটার দিকে ওই মামলায় আটকদের গ্রেফতার দেখিয়ে আদালতে পাঠানো হয়েছে বলেও তিনি জানান।