রাস্তার ইট তুলে বিক্রির অভিযোগ চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে

ফেনী: ফেনীর দাগনভূঞায় লোকাল গভর্নেন্স সাপোর্ট প্রোগ্রামের (এলজিএসপি) অর্থায়নে নির্মিত একটি সড়কের ইট তুলে বিক্রির অভিযোগ উঠেছে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল-মামুনের বিরুদ্ধে।

মঙ্গলবার (১৯ জুন) দিবাগত রাতে দাগনভূঞা উপজেলার মাতুভূঞা ইউনিয়নের মমারিজপুর গ্রামের ওই রাস্তা থেকে ইট তুলে নেওয়ার সময় পুলিশ তিন ব্যক্তিকে আটকও করেছে। রাস্তা থেকে ইট তুলে নেওয়ার খবরে পুরো এলাকায় ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়।

এলজিএসপির জেলা প্রেসিলেটর পিন্টু চন্দ্র দাস বলেন, এলজিএসপির অর্থায়নে দেড় লাখ টাকা ব্যয়ে চলতি অর্থবছরে মমারিজপুরে ৩শ’ ৮০ ফুট দৈর্ঘ্যের ব্রিক ফ্ল্যাট সলিং সড়ক নির্মাণ করা হয়। ইউনিয়ন পরিষদ কর্তৃক প্রকল্পটি বাস্তবায়নের ফলে দাগনভূঞা ও সোনাগাজী উপজেলার কয়েকটি গ্রামের মানুষ সুফল ভোগ করে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী আবদুর রব রবি জানান, সোমবার রাতে সড়কটির অর্ধেক অংশের ইট কে বা কারা তুলে নিয়ে গেছে। পরদিন মঙ্গলবার রাতে বাকি অংশের ইট তুলে নেওয়ার সময় স্থানীয়রা পুলিশে খবর দেয়। পুলিশ ঘটনাস্থলে পৌঁছে তিনজনকে হাতেনাতে আটক করেছে।

দাগনভূঞা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবুল কালাম আজাদ তিনজনকে আটকের সত্যতা নিশ্চিত করে জানান, স্থানীয় আবদুর রহিম এই শ্রমিকদের দিয়ে সড়কের ইটগুলো তুলে মোহাম্মদ উল্যাহ বাড়ির আঙিনায় রাখেন।

বুধবার (২০ জুন) দুপুরে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম ভূঞা ও দাগনভূঞা থানার ওসি আবুল কালাম আজাদ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেন। এ সময় স্থানীয়রা জানান, ব্যবসায়ী মোহাম্মদ উল্যাহ স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের কাছ থেকে ইটগুলো কিনে নিয়েছেন।

মোবাইল ফোনে জানতে চাইলে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান আবদুল্লাহ আল-মামুন বিষয়টি অস্বীকার করেন। তিনি বলেন, এ ঘটনার সাথে আমি জড়িত নই। নিজের নির্বাচনী এলাকার রাস্তার ঈট তুলে নেওয়ার প্রশ্নই আসে না!

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সাইফুল ইসলাম ভূঞা ইটগুলো সন্ধ্যার আগে যথাস্থানে পুনঃস্থাপনের নির্দেশ দিয়ে বলেন, এ ব্যাপারে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।