পাটুরিয়ায় চাপ বাড়ছে যানবাহনের নৌ পুলিশের পরিদর্শন

মানিকগঞ্জ প্রতিনিধি : ঈদযাত্রায় মানিকগঞ্জের শিবালয়ের পাটুরিয়া ফেরিঘাট এলাকায় যাত্রী যানবাহনের চাপ বাড়ছে। মঙ্গলবার দুপুরে যাত্রীবাহী বাস ও পণ্যবাহী ট্রাকগুলো ঘাট এলাকা ছেড়ে এক কিলোমিটার পর্যন্ত সড়কের দুইপাশে সারিবদ্ধ ছিল। সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানান, দেশের দক্ষিণ এবং দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১টি জেলার মানুষ মানিকগঞ্জের পাটুরিয়া ও রাজবাড়ীর দৌলতদিয়া নৌপথে ঢাকায় যাতায়াত করে। ঈদে ঘরমুখো এসব জেলার মানুষ এই পথ দিয়ে বাড়ি ফেরে। এ কারণে ঈদের আগে পাটুরিয়ায় যাত্রী ও যানবাহনের চাপ বেড়ে যায়।
বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন সংস্থার (বিআইডব্লিউটিসি) আরিচা কার্যালয় সূত্র জানায়, এই ঈদে ঘুরমুখো মানুষের ভোগান্তির বিষয়টি বিবেচনা করে এই নৌপথে ফেরির সংখ্যা বাড়ানো হয়েছে।মঙ্গলবার এই পথে আটটি রো রো (বড়), সাতটি ইউটিলিটি (মাঝারি) ও চারটি কে-টাইপসহ (ছোট) মোট ১৯টি ফেরি দিয়ে যানবাহন পারাপার করা হয়। বুধবার আরেকটি রো রো ফেরি এই পথে যানবাহন পারাপারে যুক্ত হওয়ার কথা রয়েছে। মঙ্গলবার দুপুরে সরেজমিনে দেখা যায়, যাত্রীদের নির্বিঘ্নে যাতায়াতে ঢাকা-আরিচা মহাসড়কের মানিকগঞ্জ অংশে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পুলিশ সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছেন। পাটুরিয়া ঘাট এলাকায় যানজট নিয়ন্ত্রণে মহাসড়কের শিবালয় উপজেলার টেপড়া বাসস্ট্যান্ড এলাকায় পুলিশ ব্যক্তিগত ছোট গাড়িগুলোকে টেপড়া-নালী সড়ক দিয়ে চলাচলে সহায়তা করছে। এসব ছোট গাড়িগুলোকে পাটুরিয়ার পাঁচ নম্বর ঘাট দিয়ে নদী পার করা হচ্ছে।
এ ছাড়া যাত্রীবাহী বাস ও পণ্যবাহী ট্রাকগুলো উথলী-পাটুরিয়া সংযোগ সড়ক হয়ে সরাসরি ঘাট এলাকায় যাচ্ছে। গতকাল বেলা তিনটার দিকে এসব যানবাহনের চাপ বেড়ে যাওয়ায় পাটুরিয়া ঘাট এলাকা ছেড়ে এক কিলোমটিার দূরে আরসিএল মোড় পর্যন্ত সড়কের দুই পাশে পারের অপেক্ষায় ছিল।
বিআইডব্লিউটিসির আরিচা কার্যালয়ের ব্যবস্থাপক (বাণিজ্য) তানভীর হোসেন বলেন, ঈদের আগে এই নৌপথে ২০টি ফেরি দিয়ে যানবাহন ও যাত্রী পারাপার করা হবে। যাত্রী ও যানবাহনের চাপ বাড়লেও এই পর্যাপ্তসংখ্যক ফেরি দিয়ে নির্বিঘ্নে পারাপার করা হবে।
ঘাটের পরিস্থিতি পরিদর্শন: মঙ্গলবার দুপুরে ঘাটের পরিস্থিতি এবং নদীপথে যাত্রীদের নিরাপত্তা ব্যবস্থা ও উদ্যোগ পরিদর্শন করেছেন নৌপুলিশের উপমহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মারুফ হাসান। এ সময় তাঁর সঙ্গে নৌপুলিশের অতিরিক্ত ডিআইজ মাহবুবুর রহমান, নৌপুলিশের পুলিশ সুপার আবদুল্লাহ আরেফ এবং মানিকগঞ্জের পুলিশ সুপার রিফাত রহমান শামীমসহ জেলা পুলিশ প্রশাসন, বিআইডব্লিউটিসি ও বিআইডব্লিউটিএর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা।
মানিকগঞ্জের শিবালয়ের আরিচা ও পাবনার কাজির হাট নৌপথে ১৯টি স্পীড বোট চলাচল করে। ঈদের আগে এসব স্পীড বোটে যাত্রীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত ভাড়া আদায় করা হয়। এ বিষয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে ডিআইজি মারুফ হাসান বলেন, এই অভিযোগ তিনিও শুনেছেন। যাত্রীদের কাছ থেকে নির্ধারিত ভাড়া নেওয়ার বিষয়ে তিনি নৌপুলিশকে নির্দেশ দিয়েছেন।
এ ছাড়া নৌপুলিশের জনবল ও নৌযানের সংকোট সমাধানে মারুফ হাসান বলেন, সীমিত সম্পদের মাঝেও নৌপুলিশকে ঢেলে সাজানো হচ্ছে। তাছাড়া লোকবল নিয়োগ দীর্ঘপ্রক্রিয়া। তবে এই সংকট দ্রুত সমাধান হবে। নৌপুলিশের জন্য নতুন নতুন নৌযান বাড়ানো হচ্ছে। নৌযান বাড়াতে দরপত্র আহবান দেওয়া হয়েছে। দ্রুতগামী এসব জলযান মাঠ পর্যায়ে বিতরণ করা হবে।