রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পাহাড়ধস, অর্ধশতাধিক ঘর বিধ্বস্ত

কক্সবাজার সংবাদদাতা: টানা দুদিনের ঝড়ো হাওয়া ও বৃষ্টিতে কক্সবাজারের উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে পাহাড়ধসের ঘটনা ঘটেছে। এতে রোহিঙ্গাদের অর্ধশতাধিক ঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। সেই সঙ্গে কয়েকজন রোহিঙ্গা আহত হয়েছেন। শনিবার সকালে এ ঘটনা ঘটে। সকাল থেকে শুরু হওয়া বৃষ্টিতে হঠাৎ পাহাড়ধসের ঘটনা ঘটে। পাশাপাশি বৃষ্টির পানিতে নিমজ্জিত হয় বালুখালীসহ নিচু এলাকার কয়েকটি রোহিঙ্গা ক্যাম্প। কুতুপালং মধুরছরা রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ডিজি ব্লকের মাঝি আবদুর রহিম জানান, শনিবার সকাল থেকে ঝড়ো হাওয়ার সঙ্গে শুরু হয় বৃষ্টি। ঝড়ো হাওয়ায় ব্লকের আবুল বসর, ইব্রাহিম, মুহাম্মদ ছিদ্দিক, ইউনুছ ও আয়াছসহ বেশ কয়েক জনের ঘর বাতাসে উড়ে যায়। আবার অনেকের ঘর দেবে গেছে। ক্ষতিগ্রস্তরা স্বজনদের ঘরে আশ্রয় নিয়েছেন।

উখিয়ার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নিকারুজাম্মান চৌধুরী বলেন, কুতুপালং ক্যাম্পের ডি-ফোর এবং ডি-সেভেন ব্লকে ঝড়ো বাতাস ও পাহাড়ধসে অর্ধশতাধিক ঘর বিধ্বস্ত হয়েছে। এ ঘটনায় এক রোহিঙ্গা আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। সঠিক ক্ষতির পরিমাণ নির্ধারণে ক্যাম্প সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে যোগাযোগ অব্যাহত রয়েছে।

তাজনিমার খোলা রোহিঙ্গা ক্যাম্পের নেতা জাফর আহমদ বলেন, পাহাড়ধসের পাশাপাশি ভারী বৃষ্টিতে ক্যাম্পের কয়েকটি নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে।

কক্সবাজার শরণার্থীবিষয়ক কমিশনার মো. আবুল কালাম জানান, বৃষ্টির শুরুর পর থেকে ক্যাম্পে ছোট-খাটো ভূমিধসের ঘটনা ঘটছে। বিধ্বস্ত হয়েছে বেশকিছু রোহিঙ্গার ঘর। তবে এখনো বড় ধরনের হতাহতের ঘটনা ঘটেনি। আমরা দুর্যোগের ক্ষতি এড়াতে সচেষ্ট রয়েছি।