২০৫০ সালে বাংলাদেশ হবে বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ

 বাংলাদেশের ইতিহাসের সবচেয়ে বড় ও ২০১৮-১৯ অর্থবছরের বাজেট সংসদে উপস্থাপনে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেছেন, জননেত্রী শেখ হাসিনা লক্ষ্যমাত্রা ঘোষণা করেন ২০২১ সালের মধ্যে এই দেশটি মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হবে। ২০১৫ সালেই আমরা সেই উত্তরণটি করতে সক্ষম হই। ২০১৮ সালের মার্চ সাসে জাতিসংঘের কমিটি ফর ডেভেলপমেন্ট পলিসি বাংলাদেশকে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উত্তরণের যোগ্যতা অর্জনের বিষয়টি নিশ্চিত করেছে। এসময় তিনি আশা ব্যক্ত করেন অচিরেই উন্নত বাংলাদেশে উন্নীত হবে।

অর্থমন্ত্রী বলেন, ২০২১-২০২০ সাল পর্যন্ত দুটি পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা অনুযায়ী বিগত ২ বছর যাবৎ প্রবৃদ্ধি ৭ শতাংশের উর্ধ্বে রাখা হয়েছে। চলতি ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে প্রবৃদ্ধি হচে ৭.৬৫ শতাংশ। সারা বিশ্ব ইতোমধ্যেই উন্নয়ন কৌশল ও কার্যক্রমের স্বীকৃতি দিয়েছে।

এছাড়া প্রস্তাবিত বাজেটে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সাফলের দিকগুলো তুলে ধরেন অর্থমন্ত্রী। এসময় তিনি বলেন, তলাবিহীনভাবে এদেশকে আখ্যায়িত করা হয়েছে। আজকে এই দেশে উন্নত দেশে রূপান্তর হচ্ছে।

আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের পরিসংখ্যান মতে জিডিপি’র ভিত্তিতে বর্তামানে বাংলাদেশ পৃথিবীর ৪৩তম বৃহৎ অর্থনীতির দেশ এবং ক্রয় ক্ষমতার সমতার ভিত্তিতে অবস্থান ৩২তম। ২০৩০ সালের মধ্যে ২৮তম এবং ২০৫০ সালের মধ্যে বাংলাদেশ হবে বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ।