১৪ জুলাই থেকে শুরু হজ ফ্লাইট

স্টাফ রিপোর্টার: এ বছরের ১৪ জুলাই থেকে হজ ফ্লাইট শুরু হবে। ইতিমধ্যে সরকারি বা বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ ভিসা-প্রক্রিয়াও শুরু হয়েছে। অতীতে দেখা যেত রমজান মাস শেষে ঈদের পরপর এসব কাজ শুরু হয়। তবে এবার রোজার শুরুতেই এসব কার্যক্রম শুরু হয়েছে।

বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রী একে এম শাজাহান কামাল বৃহস্পতিবার বিকেলে সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভা কক্ষে এক বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের এ কথা জানিয়েছেন।

এসময় মন্ত্রী বলেন, আগের বছরগুলোতে হজযাত্রীদের তথ্য যাচাইয়ের লক্ষ্যে পুলিশ ভেরিফিকেশনের বাধ্যবাধকতা ছিল। নতুন হজ নীতিতে পুলিশ ভেরিফিকেশনের কার্যক্রম বিলুপ্ত করা হয়েছে। নিবন্ধনের পর কোন হজযাত্রী প্রতিস্থাপন করা যাবে না। তবে মৃত্যু বা গুরুতর অসুস্থতার কারণে সর্বোচ্চ ৪ শতাংশ হজযাত্রী প্রতিস্থাপনের সুযোগ পাবেন।

ধর্মমন্ত্রী বলেন, কোনো দালাল বা মধ্যস্বত্বভোগী তথাকথিত কাফেলা, গ্রæপ লিডারের সাথে হজের লেনদেন করে প্রতারিত হলে সরকার এর দায় নেবে না। এবার বিভিন্ন রকমের জটিলতা নিরসনে হজ যাত্রীদের প্রশিক্ষণ নিশ্চিত করা হবে।

মন্ত্রী বলেন, সরকারি ব্যবস্থাপনার বাড়ি ভাড়ার জন্য আন্ত:মন্ত্রণালয় কমিটি গঠনের বিধান সংযোজন করা হয়েছে। হজ ফ্লাইট বিপর্যয় রোধকল্পে সুষ্ঠু ফ্লাইট পরিচালনার স্বার্থে এয়ার লাইন্স কর্তৃক টিকিট বিক্রয় বা বুকিং সরাসরি সংশ্লিষ্ট হজ এজেন্সিকে প্রদান ও অনলাইনে প্রদর্শনের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

মতিউর রহমান জানান, বেসরকারি ব্যবস্থাপনার হজযাত্রীরা হজ সংশ্লিষ্ট আর্থিক লেনদেনের পূর্বে এজেন্সি কর্তৃক প্রদেয় সুযোগ সুবিধার বিষয়ে যথাযথ অবহিত করবেন। ধর্ম মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত ফরম নং ১৫ পূরণ করে চুক্তি সম্পাদন পূর্বক নিজের কাছে তা অবশ্যই সংরক্ষণ করবেন।

ধর্মমন্ত্রী বলেন, সরকার অনুমোদিত হজ এজেন্সির সাথে সরাসরি হজ সংশ্লিষ্ট আর্থিক লেনদেন করতে হবে অন্যথায় সরকার এ বিষয়ে কোন দায় নেবে না। বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় হজ যাত্রীরা চুক্তি মোতাবেক প্রদেয় অর্থ সরাসরি হজ এজেন্সির ব্যাংক একাউন্টে জমা দিয়ে অবশ্যই ব্যাংক থেকে প্রাক নিবন্ধন ও নিবন্ধন সনদ সংগ্রহ ও তা সংরক্ষণ করতে হবে।

মন্ত্রী আজ শুরু হওয়া নিবন্ধন কার্যক্রমে নিবন্ধন করা প্রথম ব্যাক্তি শাহ জওয়াহের জাহান কবীরকে তার নিবন্ধনের কাগজ আনুষ্ঠানিকভাবে তুলে দেন।