ইয়েমেনে আঘাত হানলো ঘূর্ণিঝড় ‘মেকুনু’, নিহত পাঁচ

 ইয়েমেনের দক্ষিণাঞ্চলীয় দ্বীপ সোকোট্রায় ট্রপিক্যাল সাইক্লোন মেকুনুর আঘাতে এখন পর্যন্ত অন্তত ৫ জন নিহত হয়েছে এবং ৪০ জন নিখোঁজের তথ্য পাওয়া গিয়েছে। দেশটির রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম জানিয়েছে, ইয়েমেন মূল ভূখণ্ডের সীমান্ত এবং ওমানে এটি আঘাত হানতে পারে।  নিহতদের চারজন ইয়েমেনের ও একজন ভারতের নাগরিক বলে জানায় বার্তাসংস্থা রয়টার্স। নিখোঁজ হওয়া ব্যক্তিদের মধ্যে ইয়েমেন, ভারত ও সুদানের নাগরিকরা রয়েছেন।  ইয়েমেন সরকার সোকোট্রাকে একটি ‘দুর্যোগ এলাকা’ হিসেবে ঘোষণা দিয়েছে। ইয়েমেনের রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা সাবা জানাচ্ছে, বুধবার ঝড়ে দুটি জলযান উল্টে গেছে এবং তিনটি গাড়ি ভেসে গেছে।   সাইক্লোন মেকুনু এখন ইয়েমেনের মূল ভূখণ্ডের সীমানার কাছাকাছি এবং ওমানে আঘাত হানবে। স্থানীয় সময় শুক্রবার ওমানের শহর সালালাহ’য় সাইক্লোনটি আঘাত হানবে বলে জানা গেছে।  ঘণ্টায় ১৬৫ কিলোমিটার বেগে ঝড়ো বাতাসসহ সাইক্লোনটি একটি দ্বিতীয় ক্যাটাগরির হ্যারিকেন বলে জানাচ্ছে সিএনএনের আবহাওয়া পূর্বাভাসকারীরা। তারা বলছেন, উপকূলীয় এলাকায় ইতোমধ্যে ব্যাপক বৃষ্টি হচ্ছে।  এদিকে যেসব এলাকায় গড়ে বছরে ১০০ মিলিমিটার বা তার কম বৃষ্টিপাত হয় সেখানে মেকুনুর প্রভাবে ১০০ থেকে ২৫০ মিলিমিটার (প্রায় চার থেকে ১০ ইঞ্চি) বৃষ্টিপাত হতে পারে। একইসঙ্গে উপকূলীয় এলাকায় প্রায় ৩০ ফুট উচ্চতার ঢেউ পর্যন্ত উঠতে পারে। ওমানে মার্কিন দূতাবাস ঝড় থেমে যাওয়ার আগ পর্যন্ত দুর্গত এলাকা এড়িয়ে চলতে মানুষকে পরামর্শ দিয়ে আবহাওয়া সতর্কতা জারি করেছে।  তারা জানাচ্ছে, উপকূলবর্তী এলাকা এবং সালালাহ’র আশপাশের মানুষজনকে অন্যত্র সরিয়ে নেয়া হয়েছে। ভারি বৃষ্টিপাত, শক্তিশালী বাতাস, বন্যা, ভূমিধস, বিদ্যুৎ বিভ্রাটসহ দক্ষিণাঞ্চলীয় ওমানে যাতায়াত বাধাগ্রস্ত হতে পারে।