রাজধানীতে আবার পায়ের ওপর দিয়ে গেল বিআরটিসির বাস

রাজধানীতে এবার এক নারীর পায়ের ওপর দিয়ে গেল বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন করপোরেশনের (বিআরটিসি) বাসের চাকা। স্বস্তি ইসলাম (৫০) নামে ওই নারীর বাম পায়ের ওপর দিয়ে বাসটি চলে যায়। ঘটনাস্থলেই তার বাম পায়ের হাঁটুর নিচে হাড় ভেঙে ঝুলে পড়ে।

বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় উত্তরার আবদুল্লাহপুর মোড়ে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় প্রত্যক্ষদর্শীরা বাস চালক ও তার সহকারীকে গণধোলাই দিয়ে পুলিশ সোপর্দ করে। স্বস্তি ইসলাম উত্তরা ৯ নম্বর সেক্টরের ৩৩ নম্বর সড়কের একটি বাসায় থাকতেন।

দুর্ঘটনার পর স্বস্তিকে প্রথমে উত্তরা আধুনিক হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য নিয়ে যাওয়া হয়। পরে তাকে জাতীয় অর্থোপেডিক হাসপাতালে (পঙ্গু হাসপাতালে) রেফার্ড করা হলে তাঁর স্বজনরা একটি প্রাইভেট হাসপাতালে নিয়ে যায়। প্রত্যক্ষদর্শী হাসেম নামের এক ফুটপাতের দোকানদার বলেন, ‘ওই নারী গাজীপুর থেকে বিআরটিসি বাসে করে উত্তরার আবদুল্লাহপুর আসেন। পরে বাস থেকে তিনি নামার জন্য এক পা ফেলার পর অন্য পা ফেলার আগেই বাসটি টান মারে। পরে ওই নারীর এক পায়ের উপর দিয়ে বাসের চাকা গিয়ে এক পায়ের হাটুর নিচে হাড় মাংস ভেঙ্গে এক হয়ে ঝুলে যায়।’

হাসেম আরো বলেন, ‘এ ঘটনা দেখে আমি ও আশে আশে পাশে লোকজন ড্রাইভার ও হেলপার গণধোলাই দিয়ে পুলিশ বক্সে দিয়ে আসি। পরে পুলিশ তাদের কী করেছে তা জানি না।’

স্বস্তির মেয়ের স্বামী প্লাবন বলেন, ‘বিআরটিসির বাস চাপায় আমার শাশুড়ির এক পা বিচ্ছিন্ন হয়ে গেছে। বর্তমানে তিনি অপারেশন থিয়েটারে আছেন।’

আবদুল্লাহপুরে কর্তব্যরত পুলিশ সার্জেন্ট তানভীর আহমেদ বলেন, ‘দুর্ঘটনার পর বাসটিকে আটক করে উত্তরা পূর্ব থানা পুলিশের হেফাজতে দেওয়া হয়েছে। ওই বাসের নম্বর ঢাকা মেট্রো ব ১৪-৪৬৪৩।’

গত ২০ এপ্রিল রাত সাড়ে ৮টার দিকে বনানীর চেয়ারম্যান বাড়ির সামনে বিআরটিসির ঢাকা মেট্রো ব-১১-৫৭৩৩ বাস রোজিনা আক্তার নামে এক নারীকে ধাক্কা দেয়। রোজিনা পড়ে গেলে বাসটি তার ডান পায়ের ওপর দিয়ে চলে যায়। এতে তার পা দেহ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। রোজিনা গাজী টেলিভিশনের প্রধান সম্পাদক সৈয়দ ইশতিয়াক রেজার বাসায় গৃহকর্মী হিসেবে কাজ করতেন। গত ২৯ এপ্রিল চিকিৎসাধীন অবস্থায় রোজিনা মারা যান।