আশুলিয়ায় মাদক ব্যবসার প্রতিবাদ করায় যুবককে কুপিয়ে জখম

আশুলিয়া ব্যুরো : আশুলিয়ায় মাদক ব্যবসা করার প্রতিবাদ করায় ইসমাইল(২৩) নামে এক যুবককে ধারাল অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে ও পিটিয়ে জখম করেছে মাদক ব্যবসায়ীরা। এসময় তাকে উদ্ধারের জন্য এগিয়ে আসা মর্জিনা (৪৫)সহ দু’জনকে বেদম মারধর করে মাদক ব্যবসায়ীরা। তার ডাক চিৎকারে প্রতিবেশিরা এগিয়ে এসে উদ্ধার করে নারী ও স্বাস্থ্য কেন্দ্রে চিকিৎসার জন্যে ভর্তি করেন। এসময় তার পিতা আব্দুর রউফের দোকানে হামলা চালিয়ে লক্ষাধিক টাকা লুট করেছে বলে অভিযোগ করেন। ঘটনায় থানায় অভিযোগ হয়েছে। বুধবার সন্ধ্যায় আশুলিয়ার বেরণ নারী ও শিশু স্বাস্থ্য কেন্দ্রের পাশের গলির ইস্টার্ন হাউজিং মাঠে দেশিয় অস্ত্র নিয়ে চি‎ি‎হত মাদক সন্ত্রাসীরা তাকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে রক্তাক্ত জখম করার ঘটনা ঘটায়। আহত ইসমাইল ওই এলাকার মুদি-মনোহরী ব্যবসায়ী আব্দুর রউফের ছেলে।
এ ব্যাপারে ইসমাইল বলেন, একই এলাকার বাসিন্দা আলমগীর ও তার সঙ্গীয় রমজান, মুন্না, কিতাব আলী ও আরিফকে নিয়ে এলাকায় মাদক ব্যবসায় নারী দিয়ে অসামাজিক কর্মকান্ড চালায়। তাদের এ কর্মকান্ডের প্রতিবাদ করায় তারা প্রথমে তাকে হুমকি দেয়। বুধবার সন্ধ্যায় তার পিতার ব্যবসা কেন্দ্র থেকে যাওয়ার মূহুর্তে পূর্ব থেকে ওৎপেতে থাকা ধারাল অস্ত্র ও রড দিয়ে কুপিয়ে ও পিটিয়ে তাকে রক্তাক্ত জখম করে। তার একটি পা পিটিয়ে ভেঙ্গে দেয় চিহিত এ মাদক সন্ত্রাসীরা। এরপর সন্ত্রাসীরা তার পিতার মুদী মনোহরী দোকানে হামলা চালিয়ে লক্ষাধিক টাকা ক্যাশ ভেঙ্গে নিয়ে যায়। সে আরো জানায় আলমগীর ও রমজানের রয়েছে বিশাল মাদক ব্যবসা। এছাড়া নারী দিয়ে অসামাজিক কর্মকান্ড তারা পরিচালনা করছে। তাদের ভয়ে এলাকায় কেউ মুখ খুলছে না। তারা ওই এলাকা ছাড়াও বিভিন্ন স্থানে মাদক সাপ্লাই দেয়।
প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, মাদক ব্যবসায়ীদের কাছে তারা জিম্মি। তাদের বিরুদ্ধে যে অবস্থান নেবে তাদের একই পরিনতির শিকার হতে হবে। মাদক ব্যবসায়ীরা সরকারি দলীয় লোক হওয়ায় তাদের ভয়ে আতঙ্কে থাকতে হয়। থানা পুলিশের সাথে তাদের রয়েছে সখ্যতা। ঘটনায় এলাকায় আতঙ্ক বিরাজ করছে।
জানতে চাইলে আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক লোকমান হোসেন বলেন, আহত ইসমাইলের ছোট ভাই বাদি হয়ে মারধরের একটি অভিযোগ করেছেন। ঘটনাস্থল তিনি তদন্ত করেছেন এবং এর সত্যতা পেয়েছেন। তবে আলমগীরসহ উল্লেখিতদের কাউকে তাদের বাসস্থানে পাওয়া যায়নি। তারা গা ঢাকা দিয়েছে।